অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৪ই রবিউস-সানি, ১৪৪১ হিজরী

খালেদা পাকিস্তানে ফিরে যা : জয়

Print

joy1
দৈনিক চিত্র ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পাকিস্তানে চলে যেতে বললেন। তিনি বলেন, ‘সে (খালেদা জিয়া) একজন পাকিস্তানি এজেন্ট। সে বারংবার আইএসআই এজেন্টদের সাথে মিলিত হয়েছে এবং নির্বাচনগুলোতে আইএসআই থেকে টাকা নিয়েছে। তার বাংলাদেশ থেকে বিদায় হওয়া এবং তার ভালোবাসার পাকিস্তানে গিয়ে থাকা উচিত।’

নিজের ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে এ কথা বলেন জয়। সবার উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমার সাথে একত্রে দাবি জানান— খালেদা পাকিস্তানে ফিরে যা।’
জয় তাঁর ফেসবুক পেজে লেখেন, ‘আমি ক্ষুব্ধ যে বিজয়ের মাসে খালেদা জিয়া এবং তার দল বিএনপি আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাচ্ছে। খালেদা নৃশংস পাক আর্মি ও তাদের সহযোগী খুনি জামায়াত-ই-ইসলামী কর্তৃক আমাদের নিরীহ বেসামরিক নাগরিকদের হত্যাকাণ্ডের সংখ্যাকে পাকিস্তানিদের মতই কমিয়ে বলে আসছে। সে দাবি করছে, মাত্র কয়েক শত হাজার হত্যা হয়েছে। আজ বিএনপি এমনকি সেই মৃতের সংখ্যার উপর জনমত জরিপ করতে বলছে!’

‘স্বীকৃত সত্য সব সময়ই সত্য। সেটা কখনো জরিপ দিয়ে নির্ণীত হয় না’ বলে উল্লেখ করেন জয়।

জয় বলেন, ‘৩০ লক্ষ পুরুষ, নারী ও শিশুকে ঠান্ডা মাথায় হত্যা করা হয়েছিল। হিন্দুদের নির্যাতন ও দেখামাত্র গুলি করা হয়েছিল। সমস্ত গ্রাম উজাড় করে ফেলা হয়েছিল। এমনকি যখন তারা আত্মসমর্পণ করতে রাজি হয়েছিল, তখনো তারা আমাদের সেরা বুদ্ধিজীবীদের ধরে নিয়ে গিয়ে সবাইকে হত্যা করেছিল। এগুলো যুদ্ধে হতাহতের কোনো ঘটনা ছিল না। এসব ছিল গণহত্যা।’

খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর চেষ্টা করছেন উল্লেখ করে জয় তাঁর ফেসবুক পেজে আরো লেখেন, ‘খালেদা এখন আবারো এসব খুনিকে রক্ষা করতে চেষ্টা করছে। সে নৃশংসতার শিকার মানুষগুলোর মন্ত্রী বানিয়েছে সেই খুনিদেরই। সে এখন থুতু ফেলেছে ৩০ লক্ষ শহীদের কবরে এবং থুতু ফেলেছে আমাদের দেশের মুখে। এরপর আমার আর এই মহিলার প্রতি বিন্দুমাত্র শ্রদ্ধা অবশিষ্ট নেই। আমি ঘৃণা করি যে সে কোনো সময় আমাদের জাতির প্রধানমন্ত্রী ছিল।’

জয় আরো বলেন, ‘আমি সবাইকে আহ্বান জানাচ্ছি, খালেদার বাড়ির সামনে প্রতিবাদ জানাতে যান। বিএনপি এবং তাকে দেখান যে তার পাকি প্রভুরা এবং জামায়াতি পোষা গুণ্ডারা আমাদের ভাই ও বোনেদের যে হত্যা করেছে, সেই স্মৃতি অপপ্রচার চালিয়ে মুছে ফেলা যাবে না।’




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.