অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ২৩শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১২ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী

জাতীয় স্মৃতিসৌধে দিনভর জনতার ঢল

Print

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়েছে লাখো জনতা। দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নিবেদনে ফুলে ফুলে ঢেকে যায় স্মৃতিসৌধের মূল বেদী। খবর বাসসের।

মঙ্গলবার ভোর থেকে স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা জানাতে আসে শিশু-কিশোর-তরুণ-বৃদ্ধসহ সব বয়সী মানুষ। এসেছেন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধারাও। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সোনার বাংলা বিনির্মাণের অবিচল আস্থার ছাপ ছিল সবার চোখে-মুখে। স্বাধীনতা দিবসের আনন্দ ও উচ্ছাসে স্মৃতিসৌধকে ঘিরে গোটা সাভার পরিণত হয় উৎসবের স্থানে।

দিবসের প্রথম প্রহরে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। সকাল ৬টা ১ মিনিটে জাতীয় স্মৃতিসৌধের বেদীতে প্রথমে রাষ্ট্রপতি ও এরপর প্রধানমন্ত্রী পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

রাষ্ট্রীয় সম্মান জানানো শেষে দলীয় নেতা-কর্মীদের নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি হিসেবে আরেক দফা ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান প্রধানমন্ত্রী। পরে শ্রদ্ধা জানান যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, সংসদের স্পিকার, মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, বিচারপতি ও বিদেশি কূটনীতিকরা।

পরে স্মৃতিসৌধের মূল ফটক জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। একে একে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিএনপি, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন, ঢাকা রির্পোটার্স ইউনিটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও এর বিভিন্ন হল, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ও এর বিভিন্ন হল, আমরা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, জাসদ, বিএলআরআই, গণ বিশ্ববিদ্যালয়, ন্যাপ, বিভিন্ন সরকারি ব্যাংক-বীমা প্রতিষ্ঠান, গনফোরাম, সাম্যবাদী দল, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল, গণতন্ত্রী পার্টি, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম, ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, ঘাতক-দালাল নির্মূল কমিটি, বঙ্গবন্ধু সংসদ, জাসাস, মহিলা পরিষদ, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর, বাংলা একাডেমসিহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন একাত্তররে শহীদদের প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা জানায়।

মানুষ স্মৃতিসৌধে এসেছে লাল-সবুজ রঙের পাঞ্জাবি ও শাড়ি পরে। হাত-মুখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে জাতীয় পতাকা এঁকে এসেছিল শিশু-কিশোররা। অনেকে মাথায় পরেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সংবলিত শ্লোগান লেখা ব্যান্ড। কেউ কেউ এসেছিলেন স্বপরিবারে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.