অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ৩রা রবিউস-সানি, ১৪৪০ হিজরী

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে দেশে দেশে বিক্ষোভ

Print


অনলাইন ডেস্ক : একদিকে চলছে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডনাল্ড ট্রাম্পের শপথ গ্রহণ আরেকদিকে ট্রাম্প-বিরোধীরা দলে দলে রাস্তায় নামছেন বিক্ষোভ করতে। এই বিক্ষোভে পোড়ানো হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা, ধাওয়া করা হচ্ছে ট্রাম্প সমর্থকদের। গতকাল প্রেসিডেন্ট হিসেবে ডনাল্ড ট্রাম্পের শপথ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে এমনই দৃশ্যের অবতারণা হয়। ওয়াশিংটনে অবস্থিত জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জড়ো হন কয়েকশ বিক্ষোভকারী। ট্রাম্প সমর্থক ও তার শপথ গ্রহণে যোগদানকারীদের বিদ্রূপ করা হয়। ট্রাম্পের এক সমর্থনকারীকে ধাওয়া করে বিক্ষোভ সমাবেশের পার্শ্ববর্তী ওয়ার্নার থিয়েটার পর্যন্ত নিয়ে যায় বিক্ষোভকারীরা। ওয়াশিংটনে ট্রাম্প সমর্থকরা আয়োজন করেছিলেন ‘ডেপ্লোরাবল বল’। এর বাইরে অবস্থান করছিল বিক্ষোভকারীরা। তাদের সামাল দিতে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়েছে পুলিশ।
ফিলিপাইনে বিক্ষোভ আরো ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করে। ম্যানিলায় অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভকারীরা পুড়িয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা। দেশটির ২ শতাধিক কর্মী ফিলিপাইন থেকে আমেরিকার সেনাদের প্রত্যাহার করার আহবান জানিয়েছে। সাথে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রড্রিগো দুতের্তে’কে আমেরিকামুক্ত একটি বৈদেশিক নীতিমালা তৈরি করার আহবান জানানো হয়েছে।
যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের পর পর দুতের্তের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন ট্রাম্প। পরে দুতের্তে দাবি করেন, মাদকের বিরুদ্ধে তার লড়াইয়ের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন ট্রাম্প। উল্লেখ্য, মাদকবিরোধী অভিযানে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রড্রিগো দুতের্তে কয়েক হাজার মানুষকে হত্যা করেছেন। এ জন্য আন্তর্জাতিক পর্যায়ে ব্যাপক সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে। বিবৃতি দিয়েছে অনেক মানবাধিকার বিষয়ক সংগঠন। কিন্তু ট্রাম্পের সঙ্গে দুতের্তের সুসম্পর্ক স্বাভাবিকভাবে নিতে পারে নি ফিলিপাইনের জনগণ। তাই তারা যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে ওই বিক্ষোভে নেমে আসেন। এ সময় তারা যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাসের দিকে অগ্রসর হলে তাতে বাধা দেয় পুলিশ। ফলে বিক্ষোভকারীরা দূতাবাসের গেটে পৌঁছতে পারে নি। ওদিকে বেশ কিছুদিন আগেই ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ইসরাইলি বসতি স্থাপনের নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। এমন নিন্দা জানিয়ে একটি প্রস্তাব আনা হয়েছিল নিরাপত্তা পরিষদে। কিন্তু জাতিসংঘের এমন প্রস্তাবের বিরুদ্ধে কথা বলেছেন ডনাল্ড ট্রাম্প। তাতে ফিলিস্তিনিদের মধ্যে রয়েছে উদ্বেগ। এজন্য গতকাল পশ্চিম তীরের নাবলুস শহরে ফিলিস্তিনের পতাকা হাতে প্রতিবাদ বিক্ষোভ করেছেন কয়েক শত মানুষ। এ ছাড়াও ইসরাইলে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস তেল আবিব থেকে জেরুজালেমে সরিয়ে নেয়ার কথা বলেছেন ট্রাম্প। বিক্ষোভকারীরা তার এমন মন্তব্যেরও বিরোধিতা করে স্লোগান দেন। লন্ডনেও ছড়িয়ে পড়েছে বিক্ষোভ। গতকাল ট্রাম্পের শপথ অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে টাওয়ার ব্রিজে উড়িয়ে দেয়া হয় একটি ব্যানার। তাতে লেখা- এখনই পদক্ষেপ নিন। সংযোগ স্থাপন করুন, দেয়াল নয়। লন্ডনের অন্যান্য স্থানেও একই ধরনের ব্যানার টানানো হয়েছে অন্য ব্রিজগুলোতে। এর মধ্যে রয়েছে ভক্সহল ব্রিজ। সেখানে ব্যানার টানিয়েছে এলজিবিটি সম্প্রদায়। ওদিকে লন্ডন, এডিনবার্গ, ব্রাইটন ও ম্যানচেস্টার সহ বৃটেনের বিভিন্ন শহরে বিক্ষোভ হওয়ার কথা রয়েছে।




মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.