অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৬ই মাঘ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ১লা জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

নেপাল উড়িয়ে দিয়ে বাংলাদেশের দাপুটে শুরু

Print

স্পোর্টস রিপোর্টার: সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ মহিলা ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ মাঠে গড়ানোর আগেই তিন দলের দৃষ্টিতে ফেভারিট ছিল বাংলাদেশ। আজ বাংলাদেশের শুরুটাও হয়েছে বেশ দাপুটে। নেপালি মেয়েদের এদিন ফুটবল শিখিয়েছে স্বাগতিকরা। কমলাপুরের বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে নেপালের জালে ছয় গোল দিয়েছে মারিয়া-মার্জিয়ারা। হ্যাটট্রিক করেছেন তহুরা খাতুন। অনুচিং মোগেনির পা থেকে এসেছে দুই গোল। অপর গোলটি করেছেন মনিকা চাকমা। একই ভেন্যুতে দিনের অপর ম্যাচে ভুটানকে ৩-০ গোলে হারিয়ে আসর শুরু করেছে ভারত।
প্রথমবারের মতো টুর্নামেন্টে ফেভারিটের তকমা লাগিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। এনিয়ে কিছুটা ভয়ে ভয়ে ছিলেন স্বাগতিক দলের কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। ‘ফেভারিট ফেভারিট এ কথা থেকে মেয়েরা আবার চাপ নিয়ে নেয় কিনা? ম্যাচ শেষে সেটা না হওয়ায় স্বস্তির নিশ্বাস কোচের চোখেমুখে। কৌশলগত দিক দিয়ে নেপালের চেয়ে ঢেড় এগিয়ে ছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। ম্যাচ শেষে তাই বলছিলেন নেপালের কোচ গঙ্গা গুরুং। ‘ম্যাচে পুরো নিয়ন্ত্রণ ছিলো বাংলাদেশের হাতে। আক্রমণভাগ কিংবা মিডফিল্ড সবক্ষেত্রেই ছিলো স্বাগতিকদের আধিপত্য। আমি বলবো বাংলাদেশ যোগ্য দল হিসেবেই আমাদের সহজেই হারিয়েছে’- বলছিলেন নেপাল জাতীয় দলে খেলা সাবেক এই ফুটবলাররা। ম্যাচের প্রথমার্ধে একের পর আক্রমণে গোল বের করে এনেছে আনুচিং-মনিকারা। এই অর্ধে গোল হয়েছে চারটি। খেলার ৪ মিনিটেই শামসুন্নাহার শট নিয়েছিলেন। কিন্তু গোলরক্ষক কারিনা রুখে দেন সেই শট। তিন মিনিট পর মার্জিয়ার শট ক্রস বারে লেগে ফিরে আসে। তবে ১১ মিনিটে সফল হয় বাংলাদেশ। কর্নার থেকে মনিকা চাকমার বক্সের বাইরে থেকে নেয়া জোরালো শট এক ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে পোস্টে ঢুকে স্কোর হয় ১-০। ১৪ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে বাংলাদেশ। মার্জিয়ার কর্নার থেকে পাওয়া বল আঁখি নামিয়ে দিলে আনুচিং মারমার সাইড ভলিতে জালে বল জড়ায়। এরপর ৩২ মিনিটে স্কোর দাঁড়ায় ৩-০। তহুরা খাতুন একক প্রচেষ্টায় বক্সে ঢুকে গোলরক্ষক কারিনাকে ডানদিক দিয়ে পরাস্ত করেন। বিরতির ঠিক আগে তহুরার পাস থেকে গোল করে স্কোর ৪-০ করেন আনুচিং মারমা। বিরতির পর বাংলাদেশের খেলায় ছিল ধীরগতি। তারপরও এই অর্ধে দুটি গোল এসেছে। ৫৭ মিনিটে মনিকা চাকমার শট গোলরক্ষক ঝাঁপিয়ে পড়ে রুখে দিয়েছিলেন। ৫৯ মিনিটে আনুচিংয়ের শট এক ডিফেন্ডার ফিরিয়ে দিলে তহুরা জোরালো শটে করেন ৫-০। ৭২ মিনিটে আনুচিংয়ের বাড়ানো বলে বাঁ পায়ের জোরালো শটে হ্যাটট্রিক পূরণ করেন তহুরা খাতুন। আর তাতেই ব্যবধান দাঁড়ায় ৬-০। নেপাল দু-একটি প্রচেষ্টা চালালেও স্বাগতিকদের ডিফেন্স ভেদ করা সম্ভব হয়নি।




মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.