অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৯ই শ্রাবণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জিলক্বদ, ১৪৪০ হিজরী

বিশ্ব এজতেমার মাঠ প্রস্তুতের কাজ দ্রুত এগোচ্ছে

Print

দৈনিক চিত্র প্রতিবেদক:
টঙ্গীতে বিশ্ব এজতেমা মাঠের প্রস্তুতি কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। দু’দিন আগে থেকে শুরু হওয়া মাঠের প্রস্তুতি কাজে অংশ নিতে শুক্রবার থেকে প্রচুর সংখ্যক মুসল্লি স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে টঙ্গীর বিশ্ব এজতেমা ময়দানের প্রস্তুতি কাজ শুরু করেছেন। আগামী শুক্রবার থেকে শুরু হতে যাচ্ছে তবলীগ জামাতের ৪ দিনব্যাপী বিশ্ব এজতেমা। রাজধানী ঢাকা থেকে ২২ কিলোমিটার উত্তরে টঙ্গী তুরাগ নদীর তীরে চলছে এ বিশ্ব এজতেমার আয়োজন। তবলীগ জামাতের বিবদমান দু’পক্ষকে একত্রিত করে এক পর্বে এবারের বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সম্প্রতি দু’পক্ষের মধ্যে রক্তক্ষয়ী এক সংঘর্ষে দুই মুসল্লির মৃত্যু ও ৫শ’ জন গুরুতর আহত হলে জানুয়ারি মাসের ঘোষিত তারিখে বিশ্ব এজতেমা স্থগিত হয়ে যায়। পরবর্তীতে সরকার প্রধান শেখ হাসিনার বিশেষ আগ্রহে পুনরায় এজতেমা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। এতে দু’পক্ষকে একত্রিত করে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি একটানা ৪ দিনব্যাপী বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানে সমঝোতায় আনা হয়। ১৫ ফেব্রুয়ারি থেকে টানা ৪ দিনব্যাপী এজতেমা শুরু হলেও দু’ধাপে দু’পক্ষের নেতৃত্ব থাকছে। প্রথম দুই দিনের নেতৃত্বে থাকবেন জোবায়ের পন্থী অনুসারী তবলীগ মুসল্লিদের দল। পরবর্তী দু’দিনে থাকবেন সা’দ পন্থী ওয়াসেকুল ইসলামের অনুসারী তবলীগ মুসল্লিরা। দু’গ্রুপেরই আলাদাভাবে থাকছে আখেরি মোনাজাতের অনুষ্ঠান। প্রথম পক্ষের থাকবে শনিবার আখেরি মোনাজাত। দ্বিতীয় পক্ষের থাকবে সোমবার আখেরি মোনাজাত।

শুক্রবার এজতেমা মাঠে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, এক বর্গ কিলোমিটারের বিশাল মাঠের অর্ধেক জুড়ে খালি পড়ে আছে। আর অর্ধেকের মধ্যে বাঁশের খুঁটি দাঁড়িয়ে আছে। নতুন করে বাঁশের খুঁটির ওপর চটের ছাউনি দিয়ে প্যান্ডেল তৈরির কাজ করছেন টঙ্গী, ঢাকা, গাজীপুর, উত্তরা ও আশপাশ এলাকা থেকে আশা মুসল্লিরা। খালি পড়ে থাকা মাঠের পশ্চিম উত্তর কোনে বিদেশী মুসল্লিদের জন্য তৈরি করা হচ্ছে বিদেশী কামরা। কয়েক শ’ মুসল্লি স্বেচ্ছাশ্রমের ভিত্তিতে এজতেমা মাঠে প্রস্তুতি কাজে অংশগ্রহণ করছেন। পুরো এজতেমা মাঠের প্রস্তুতি কাজ প্রায় তিন মাসে প্রতিবছর সম্পন্ন করা হয়ে থাকে। কিন্তু এবার তবলীগ জামাতের দু’পক্ষের মধ্যে গন্ডগোলের কারণে বিশ্ব এজতেমা স্থগিত হয়ে গেলে মাঠের প্রস্তুতি কাজও বন্ধ হয়ে যায়। মাঠের পুরো নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় প্রশাসন। এসব ঘটনার পর ত্রিপক্ষীয় সমঝোতার মাধ্যমে মাত্র সাতদিন পূর্ব থেকে বিশ্ব এজতেমা মাঠের প্রস্তুতি কাজ শুরু করা হয়েছে।
ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ শেখ আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে তিন দিনব্যাপী একটানা বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরবর্তীতে ৬ ফেব্রুয়ারি এজতেমা মাঠে যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এমপির নেতৃত্বে এজতেমা ময়দানে ত্রিপক্ষীয় এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে ৪ দিনব্যাপী একটানা দু’দফায় দু’পক্ষ এজতেমার নেতৃত্বে বিশ্ব এজেতমা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, গাজীপুর পুলিশ কমিশনার ওয়াইএম বেলালুর রহমান এবং দু’পক্ষের শীর্ষ স্থানীয় তবলীগ মুরুব্বিগণ। এদিকে স্থানীয় এমপি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল দৈনিক চিত্রকে জানান, বিশ্ব এজতেমা যথাসময়ে অনুষ্ঠানের লক্ষ্য নিয়ে সরকারী ও বেসরকারী প্রশাসনের সমন্বয়ের মাধ্যমে সকল প্রস্তুতি কাজ দ্রুত এগিয়ে নেয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ আগ্রহে বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি ১৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে সম্পন্ন করা হবে। গাজীপুর সিটি মেয়র জাহাঙ্গীর আলম সাবেক টঙ্গী পৌরসভা কার্যালয়ে এজতেমা অনুষ্ঠান সংক্রান্ত এক সভায় বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই বিশ্ব এজতেমা মাঠের প্রস্তুতি কাজ সম্পন্ন করা হবে। তিনি বলেন, বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানে এজতেমাস্থলে ১০টি গেইট নির্মাণ করা হবে। এজতেমা মাঠের সহযোগিতায় ১১টি টিম গঠন করা হয়েছে। থাকছে পুলিশের ১৫টি ও র‌্যাবের ৯টি ওয়াচ টাওয়ার। ১১টি টিম মাঠের পয়প্রণালী, বর্জ্য নিষ্কাশন, পানি, বিদ্যুত ও গ্যাস সরবরাহে ব্যবস্থাসহ নানা কাজ সম্পন্ন করতে ১১টি টিম গঠন করা হয়েছে। এদিকে গাজীপুর মহানগর পুলিশ কমিশনার জানান, বিশ্ব এজতেমা ময়দান ও এর আশপাশ এলাকায় শান্তিশৃঙ্খলা বজায় রাখতে ব্যাপক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, বিশ্ব এজতেমাকে ঘিরে কোন নাশকতার আশঙ্কা নেই। শান্তিপূর্ণভাবেই বিশ্ব এজতেমা অনুষ্ঠানে সকল প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.