অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৭ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২২শে মহররম, ১৪৪১ হিজরী

৭ মার্চের ঐতিহাসিক দিনে শপথ নিচ্ছেন মনসুর ও মোকাব্বির

Print

দৈনিক চিত্র প্রতিবেদক:
অবশেষে আগামী ৭ মার্চ শপথ নিচ্ছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে গণফোরাম থেকে নির্বাচিত সুলতান মোহাম্মদ মনসুর ও মোকাব্বির খান। শনিবার সন্ধ্যায় দৈনিক চিত্রের সঙ্গে আলাপকালে সুলতান মোহাম্মদ মনসুর বলেন, ৭ মার্চ শপথ নিতে আমরা দুজনই জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে চিঠি দিয়েছি। ওই দিনই আমরা স্পীকারের কাছে শপথ নেব।

৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সাবেক ডাকসু ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর ও মোকাব্বির খান জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক দল গণফোরাম থেকে মনোনয়ন নিয়ে এ জোটের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজয়ী হন। সুলতান মোহাম্মদ মনসুর জোটের শরিক দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে ও মোকাব্বির খান সিলেট-২ আসন থেকে গণফেরামের প্রতীক উদীয়মান সূর্য নিয়ে নির্বাচিত হন। এ নির্বাচনে ৩০০ আসনের মধ্যে বিএনপি থেকে ৬ জন ও গণফেরামের ২ জনসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত হন মাত্র ৮ জন।

নির্বাচনে বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ভরাডুবির পর ৩০ ডিসেম্বর রাতেই জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনের বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণা দেয়া হয় এ জোট থেকে নির্বাচিতরা শপথ নেবেন না এবং সংসদেও যাবেন না। এর ক’দিন পর গণফোরামের এক সম্মেলনে জানানো হয় গণফোরামের ২ সদস্য সংসদে যাবেন। দলের সভাপতি ড. কামাল হোসেন নিজেই বলেন, সংসদে যাওয়ার বিষয়ে তার দল ইতিবাচক সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

গণফোরাম থেকে নির্বাচিত ২ জন সংসদে যাবে শুনে বিএনপি নেতরা জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বায়ক ড. কামাল হোসেনকে চাপ দেন। পরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এক স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠক শেষে জানানো হয় এ জোটের কেউ শপথও নেবে না, সংসদেও যাবে না। এক পর্যায়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচন করা সব প্রার্থীকে বিএনপি চেয়ারপার্সনের গুলশান কার্যালয়ে ডেকে তাদের সঙ্গে তারেক রহমান স্কাইপিতে ব্রিফ করেন। এরপর ওই প্রার্থীরা সবাই মিলে নির্বাচন কমিশনে ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে নতুন করে ভোট করার দাবি জানান। ওই বৈঠক থেকে আবারও জানানো হয় জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিতরা শপথও নেবে না, সংসদেও যাবেন না।

এদিকে দল ও জোটের সিদ্ধান্ত থাকার পরও সুলতান মনসুর ও মোকাব্বির খান শপথ নিয়ে জাতীয় সংসদে যোগদানের চেষ্টা করতে থাকেন। শনিবার সন্ধ্যায় সুলতান মনসুর দৈনিক চিত্রকে জানান, আমরা দুজন ৭ মার্চ শপথ নিচ্ছি। কারণ শত প্রতিকূলতার মধ্যে জনগণ আমাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন, তাদের ভোটের সেই মর্যাদা দিতে শপথ নিচ্ছি।

এ বিষয়ে গণফেরামের সাধারণ সম্পাাদক মোস্তফা মোহসীন মন্টু সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, আমাদের দলের মনোনয়নে নির্বাচিত ২ জনের সংসদে যাওয়া কিংবা শপথ নেয়ার বিষয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে শপথ নিতে হলে তারা নিজ নিজ সিদ্ধান্তে শপথ নেবেন। আমরা যেটা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, শপথ নিতে চিঠি দিতে হলে ঐক্যফ্রন্টের সবাই একসঙ্গে দেব এবং একসঙ্গে যাব আন্দোলনের অংশ হিসেবে। এখন কেউ যদি এককভাবে শপথ নেয়ার জন্য চিঠি দেয়, তাহলে তাদের বিষয়ে আমাদের সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এ ব্যাপারে দলীয় ফেরামে আলোচনার পর জানানো হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.