অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৫ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরী

এবার ভর্তিযুদ্ধ

Print

স্টাফ রিপোর্টার: মেধার সর্বোচ্চ স্বাক্ষর রেখে পেয়েছেন জিপিএ-৫। তারপরও কাক্সিক্ষত উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারবেন না অনেকে। যারা জিপিএ-৫ এর কম পেয়েছেন, তাদের বেশির ভাগই পাবেন না কাক্সিক্ষত উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ। বৃহস্পতিবার এইচএসসির ফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে দেখা যায়, ১০টি বোর্ডে মোট পাস করেছে ৮ লাখ ৯৯ হাজার ১৫০ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে সর্বোচ্চ ফলাফল জিপিএ-৫ পেয়েছে ৫৮ হাজার ২৭৬ জন। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) গত বছরের তথ্যমতে, জাতীয় ও উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় বাদে ৩৩টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে আসন সংখ্যা ৪০ হাজার ৭২৭টি। অন্যদিকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যমতে, সরকারি মেডিকেল কলেজগুলোয় আসন রয়েছে ২ হাজার ১১০টি। আর বেসরকারি মেডিকেলে আসন রয়েছে ৩ হাজার ৬১০টি। মূলত এই আসন ঘিরেই হবে ভর্তির তীব্র লড়াই। অর্থাৎ এই বছরই জিপিএ-৫ পাওয়ার পরও ১৫ হাজার ৪৩৯ জন শিক্ষার্থী কাক্সিক্ষত উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভর্তির সুযোগ হারাবে। এর মধ্যে গত বছর কাক্সিক্ষত প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারেনি এরকম আরো অর্ধলাখ শিক্ষার্থী যোগ হবে এবার মূল প্রতিযোগিতায়। তার সঙ্গে জিপিএ-৩.৫ পাওয়া আরো পৌনে ৫ লাখ শিক্ষার্থীও লড়বে মূল প্রতিযোগিতায়।
শিক্ষা সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, এবার পাস করার শিক্ষার্থীদের আসন সংকট না হলেও ভালো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়া নিয়ে হবে তুমুল যুদ্ধ। এই যুদ্ধ অবতীর্ণ হওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। তবে আসন কম থাকায় ভালো ফল করেও শিক্ষার্থীদের উচ্চশিক্ষার জন্য ভালো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটছে না। আসনস্বল্পতার কারণে কাক্সিক্ষত প্রতিষ্ঠানে ভর্তির সুযোগ মিলবে না। প্রতি বছরের মতো এবারও তাদের তীব্র প্রতিযোগিতার মধ্য দিয়ে প্রতিটি আসনের জন্য লড়তে হবে। এদিকে নামকরা উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি নিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে দুশ্চিন্তা ও শঙ্কা থাকলেও মূলত উচ্চ শিক্ষায় আসন সংকট নেই বলে জানা গেছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়, ইউজিসি, ব্যানবেইসসহ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজে আসন সংখ্যা সাড়ে তিন লাখ, ডিগ্রি কলেজগুলোয় পাস কোর্সে আসন রয়েছে দেড় লাখের বেশি। এছাড়া বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোয় আসন আছে ৭০ হাজারের কিছু বেশি। ফলে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল কলেজ ও বুয়েটে ভর্তি হতে না পারা বেশিরভাগ শিক্ষার্থীকে পড়তে হবে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি কলেজে কিংবা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে।
এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষা অর্জনে ভর্তিতে আসন সংকট বাধা হবে না বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশের সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, কোনো শিক্ষার্থী যদি উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে চায় আসনের জন্য তার কোনো বাধা হবে না। তবে তার পছন্দের যে প্রতিষ্ঠান সেখানে সে ভর্তি নাও হতে পারে। কিন্তু সে ভর্তি হতে পারবেই।
ইউজিসির তথ্যমতে, দেশের পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অনার্স কোর্সে ভর্তি হতে পারবেন প্রায় সাড়ে আট লাখ শিক্ষার্থী। অর্থাৎ, ভালো ফল করেও পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে পারবেন না অনেকেই। এমন প্রেক্ষাপটে, উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে মানের ভারসাম্য আনার প্রতি জোর দিয়েছেন শিক্ষাবিদরা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, আমাদের শিক্ষার অপূর্ণতা রয়ে গেছে। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে যেমন আছে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে আরো বেশি। গতানুগতিক শিক্ষার বাইরে আমরা এখনও কিছু চিন্তা করতে পারছি না। ইউজিসি বলছে, প্রথম সারির পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে আসন সংকট থাকলেও, কোনো শিক্ষার্থীই উচ্চ শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে না। আগামী শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৭টি নতুন বিভাগ খোলার অনুমতি দিয়েছেন তারা। এসব বিভাগে অন্তত দুই হাজার শিক্ষার্থী ভর্তি হতে পারবেন।
বিজ্ঞানে তুমুল লড়াই: এবার ৮টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ডে মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৪৮ হাজার ৯৫০ জন। এরমধ্যে শুধু বিজ্ঞান বিভাগ থেকেই পেয়েছেন ৪১ হাজার ৪৬৮ জন। এইচএসসি পরীক্ষায় যত পরীক্ষার্থী জিপিএ-৫ পেয়েছেন, তাদের প্রায় ৮৫ শতাংশই বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী। অর্থাৎ ৩৬টি সরকারি মেডিকেল একাডেমিক কার্যক্রম চালাচ্ছে ২৯টি। সেখানে প্রায় ২৩শ’ শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ পায়। ৯টি ডেন্টাল ৫৬৭টি, বুয়েটসহ ৫টি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি প্রায় ৩৫০০ আসন, ৪টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ২৭০০ আসনের মতো। ১টি টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় ৪১০টি। একটি মেরিন একাডেমিতে মোট আসন আছে ৩০০। এছাড়া পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানের অনুষদে লড়বে তারা। সাড়ে ১৫ হাজার আসনের জন্য বিজ্ঞান বিভাগের ৪১ হাজারে বেশি জিপিএ-৫ ধারী ছাড়াও জিপিএ-৪ ধারীরও ভর্তির লড়াইয়ে লড়বে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: