অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৬ই রমযান, ১৪৪২ হিজরী

কাল ‘আবুরা সড়ক’ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

Print

স্টাফ রিপোর্টার : হাওরের মাঝে দিয়ে আঁকাবাঁকা পিচঢালা সড়ক। সড়কে চলছে যানবাহন। সেই সাথে ঢেউয়ের আছড়ে পড়ার শব্দ। যেন সৌন্দর্যের এক মহোৎসব। আর এই রাস্তা দেখতে ভিড় করছেন হাজারো পর্যটক। দৃষ্টিনন্দন অল ওয়েদার সড়কটি দেখতে পর্যটকরা দলে দলে ভিড় করছে হাওরে। আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, পর্যটন সম্ভাবনার পাশাপাশি সারাদেশের সাথে সড়কপথে হাওরের যোগাযোগের ক্ষেত্র তৈরি করে দিয়েছে এই সড়ক।

হাওরের স্বপ্নের সড়ক ‘আবুরা সড়ক’ আগামীকাল ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামীকাল বৃহস্পতিবার সকালে গণভবন থেকে মিঠামইনের রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ অডিটরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে উদ্বোধন করা হবে অলওয়েদার সড়কটির।

জানা যায়, গত অর্থ বছরে এই ৪০ কিলোমিটার সড়কটি প্রায় ৯০০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। তবে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর পর্যন্ত বাড়ানো হবে সড়কটি। এ কাজটি শেষ হলে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত হবে কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চল। কেবল বর্ষায় নয়, শুকনো মৌসুমেও হাওরে চলাচলের জন্য নির্মিত হয়েছে ৩৬ কিলোমিটার সাব-মার্সেবল সড়ক। নদ-নদীতে বসানো হয়েছে বেশকিছু ফেরি।

কিশোরগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী রাশেদুল আলম জানান, সড়কটি আরো দৃষ্টিনন্দন করতে দুইপাশে গাছপালা লাগানোর প্রকল্প এরইমধ্যে হাতে নেয়া হয়েছে। জমি অধিগ্রহণের কাজ শুরু হয়ে গেছে।

সড়কটি প্রসঙ্গে কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক বলেন, এই সড়কটি নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার কারণে হাওর অঞ্চলের মানুষদের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হয়েছে। পর্যটকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা গেলে বিশ্বের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র হতে পারে এই আবুরা সড়ক।

কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী বললেন, ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়কটি এরই মধ্যে পরিচিতি পেয়েছে হাওরের বিস্ময় হিসেবে। সড়কটি নির্মিত হওয়ায় অনুন্নত হাওর এলাকায় আর্থ সামাজিক উন্নয়নে ব্যাপক পরিবর্তন সূচিত হয়েছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: