অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৩রা আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৯ই সফর, ১৪৪৩ হিজরী

কুরআনে ভুল খুঁজতে গিয়ে মুসলমান হলেন খ্রিস্টান গবেষক

Print

অনলাইন ডেস্ক : অধ্যাপক ড. গ্যারি মিলার। তিনি ছিলেন কানাডার খ্রিস্টধর্ম প্রচারক। পবিত্র কুরআনে ভুল খোঁজার চেষ্টা করেন এই অধ্যাপক। কুরআনের ভুল বের করে যাতে ইসলাম ও কুরআন বিরোধী প্রচারণা চালানো সহজ হয় সেজন্য তিনি এ চেষ্টা করেন। কিন্তু কুরআন পড়ার পর তার ভিতরে অদ্ভুত পরিবর্তন আসে। ফলে নিজেই ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে মুসলমান হন। তার বর্তমান নাম আবদুল আহাদ উমার।

এ প্রসঙ্গে অধ্যাপক ড. গ্যারি মিলার বলেন, আমি কুরআন সংগ্রহ করে তা পড়া শুরু করি। প্রথমে ভেবেছিলাম কুরআন নাযিল হয়েছে আরবের মরুচারীদের মধ্যে। তাই এতে নিশ্চয় মরুভূমি সম্পর্কে কথা থাকবে। কুরআন নাযিল হয়েছে ১৪০০ বছর আগে। তাই আমার ধারণা ছিল- খুব সহজেই এতে অনেক ভুল খুঁজে পাব ও সেসব ভুল মুসলিমদের সামনে তুলে ধরব। তিনি বলেন, কিন্তু কুরআন পড়ার পরে বুঝলাম আমার এসব ধারণা ঠিক নয়, বরং আমি অনেক আকর্ষণীয় তথ্য পেলাম। বিশেষ করে সূরা নিসার ৮২ নম্বর আয়াতটি আমাকে গভীর ভাবনায় নিমজ্জিত করে। সেখানে আল্লাহ বলেন, এরা কী লক্ষ্য করে না কুরআনের প্রতি? এটা যদি আল্লাহ ছাড়া অন্য কারো পক্ষ থেকে নাযিল হতো, তবে এতে অবশ্যই বহু বৈপরিত্য দেখা যেত’।

এরপর আরো গভীরভাবে কুরআন অধ্যয়ন শুরু করেন গ্যারি মিলার। আর তার এই অধ্যয়নই তাকে নিয়ে গেল ইসলামের পথে। ইসলামের দোষ খুঁজতে গিয়ে তিনি হয়ে গেলেন একজন মুসলিম- তথা মহাসত্যের কাছে সমর্পিত একজন।

এই অধ্যাপক বলেন, আমি খুব বিস্মিত যে- কুরআনে ঈসার (আ.) মাতা মারিয়ামের নামে একটি বড় পরিপূর্ণ সূরা রয়েছে। আর এ সূরায় তার এত ব্যাপক প্রশংসা ও সম্মান করা হয়েছে যে, এত প্রশংসা বাইবেলেও দেখা যায় না। পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন স্থানে বিশ্বনবী মুহাম্মাদ (সা.)-এর নাম মাত্র ৫ বার এসেছে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: