অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৪শে জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী

কোনো সুসংবাদ নেই আশরাফুলের

Print

স্পোর্টস রিপোর্টার: ২০শে সেপ্টেম্বর থেকে মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগ (বিসিএল)। ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক প্রথম শ্রেণির লীগে চারটি দলের জন্য ক্রিকেটারদের তালিকা চ‚ড়ান্ত বলে নিশ্চিত করেছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু। ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের অনুমোদনের পর ক্রিকেটারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। অবশ্য ১৪ই আগস্ট ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে বিসিএল নিয়ে একটি সভা হওয়ার পরই এ তালিকা প্রকাশ হতে পারে বলে জানিয়েছে একটি সূত্র। বিপিএলে ফিক্সিংয়ের দায়ে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন মো. আশরাফুল। কাল ১৩ই আগস্ট থেকে তার ঘরোয়া ক্রিকেট খেলার ওপর থেকে সেই নিষেধাজ্ঞা উঠে যাচ্ছে। আশরাফুলসহ তার ভক্তদের আশা ছিল হয়তো বিসিএল দিয়ে তিনি মাঠে ফিরছেন। এছাড়াও সবার আশা হয়তো বিপিএলও খেলবেন তিনি। কিন্তু আশরাফুলের নিষেধাজ্ঞা উঠলেও তিনি কবে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলা শুরু করবেন তা এখনও নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। এমনকি দল নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা প্রধান নির্বাচকের কাছেও তার বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দেয়নি বিসিবি। এ বিষয়ে মিনহাজুল আবেদিন নান্নু বলেন, ‘আশরাফুলের বিষয়ে আমাদের কাছে বোর্ড থেকে কোনো নির্দেশনা আসেনি। সে কবে খেলবে, তাকে দলে নেয়ার জন্য কোনো প্রক্রিয়ার কথাও বোর্ডের পক্ষ থেকে আমাদের কাছে আসেনি। যে কারণে দল নির্বাচনের জন্য আমাদের তালিকায়ও তার নাম রাখা হয়নি।’ বিসিএলের জন্য ক্রিকেটারদের তালিকা চূড়ান্ত করা বিষয়ে প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘আমাদের দিক থেকে ক্রিকেটারদের যে তালিকা দেয়ার কথা সেটি চূড়ান্ত। আমরা বিসিবিতে সেটি জমাও দিয়ে দেবো। এরপর ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগ ও বোর্ডের পক্ষ থেকে দল ঘোষণা করা হবে।’ ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট লীগে অংশ নেয়া দলগুলোর এরই মধ্যে প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। তবে দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে যেন আগের মতো কোনো জটিলতা না হয় সে জন্য ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোনের সমন্বয়ক উদয় হাকিম বলেন, ‘আসলে এমনিতে বিসিএল নিয়ে তেমন কোনো সমস্যা না হলেও দল নির্বাচনে ছোট খাটো সমস্যা থাকে। তার জন্য বিসিবি ও নির্বাচকদের কাছে অনুরোধ থাকবে যেন যে যে বিভাগের ক্রিকেটার তাকে সেই বিভাগেই রাখা হয়। যদি কোনো দল তার বিভাগের ক্রিকেটারকে রাখতে না চায় সেই ক্ষেত্রে তাকে অন্য দলে দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া যেতে পারে।’ প্রধান নির্বাচক দল গঠন সম্পর্কে বলেন, ‘সবার আগে জাতীয় দলে যারা খেলেন তাদেরকে দলে জায়গা দেয়া হয়েছে। এরপর অবশ্যই যারা এনসিএলসহ অন্যান্য ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো করেছে এবং জাতীয় দলে খেলার যোগ্যতা আছে তাদেরকে আমরা সুযোগ দিয়েছি। সামনেই ইংল্যান্ড সিরিজ টেস্ট আছে। সেটিও দল নির্বাচনে বিবেচনা করা হয়েছে।’
অন্যদিকে আশরাফুলকে ঘরোয়া ক্রিকেট খেলতে হলে আবারও গোড়া থেকেই শুরু করতে হবে। বিসিবি যদি তাকে জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) খেলার সুযোগ দেয় সে ক্ষেত্রে সেখানে তাকে প্রমাণ করতে হবে। এরপর প্রিমিয়ার লীগে কোনো ক্লাব যদি তাকে দলে নিতে রাজি হয় সেখানেও তাকে খেলে নিজেকে প্রমাণ করতে হবে। বিসিএল দিয়ে ঘরোয়া ক্রিকেটে ফেরার বিষয়টি উড়িয়ে প্রধান নির্বাচক বলেন, ‘যারা এনসিএলে ভালো খেলে, নিজেকে প্রমাণ করতে পারে সেই ক্রিকেটারদেরই আমরা বিসিএলে গুরুত্ব দিয়ে থাকি। তাদের নিয়ে দল করি। কিন্তু আশরাফুলতো এতদিন ক্রিকেটের বাইরে তাকে দেখারও একটি বিষয় আছে।’ তাই কাল থেকে ঘরোয়া ক্রিকেটে তার নিষেধাজ্ঞা উঠে গেলেও আশরাফুলকে আরো লম্বা সময় অপেক্ষা করতে হবে প্রতিযোগিতা মূলক ক্রিকেটে ফিরতে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: