অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ১০ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই জিলক্বদ, ১৪৪২ হিজরী

ছিটমহল বিনিময়ের এক বছর: বিজয়ের পতাকা উত্তোলন

Print

অনলাইন ডেস্ক: ছিটমহল বিনিময়ের এক বছর পালন করেছে সেখানকার বাসিন্দারা। দিনটিকে বিজয়ের দিন ঘোষণা করে উড়িয়েছে বিজয়ের পতাকা। করেছে র‌্যালি। ওদিকে এক বছর পূর্ণ হলেও বিলুপ্ত ছিটবাসীর প্রায় এক-তৃতীয়াংশ নাগরিকের নাম উঠেছে ভোটার তালিকায়। ইসির তথ্য অনুযায়ী, ৩৭ হাজারেরও অধিক সিটবাসীর মধ্যে প্রায় সাড়ে ১০ হাজার নাগরিক ভোটার হিসেবে নিবন্ধিত হয়েছেন। এর মধ্যে নারী ভোটার সংখ্যাই বেশি। গতকাল এসব ভোটারের খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। আগামী ৪ঠা সেপ্টেম্বর চ‚ড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে। এর পরই প্রথমবারের মতো জাতীয় পরিচয়পত্র হাতে পেতে যাচ্ছে দীর্ঘদিন ধরে সুবিধা বঞ্চিত এই নাগরিকরা।
ইসি কর্মকর্তারা জানান, বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীদের ভোটার করা শেষ না হওয়ায় অন্তত ২৭টি ইউপি নির্বাচন করা যায়নি। চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশের পরই নির্বাচনের ব্যবস্থা করা হবে। ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠানের জন্য সব প্রস্তুতি শেষ করে নভেম্বর-ডিসেম্বরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট ইউপিগুলোতে নির্বাচন করা হবে বলে ইসি সূত্র জানিয়েছে।
নির্বাচন কমিশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, বিলুপ্ত ছিটের অধিবাসী সংখ্যা ৩৭ হাজার ৯৩৬ জন। এর মধ্যে আঠারো বা তার বেশি বয়সী ১৩ হাজার ১০৮ জন নাগরিকের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। তার মধ্যে পুরুষ ৬ হাজার ৬৯০ জন ও নারী ৬ হাজার ৪১৮ জন। ভোটার হিসেবে ছবি তুলে নিবন্ধিত হয়েছেন ১০ হাজার ২২৭ জন। এতে পুরুষ ৫ হাজার ১০৩ জন ও নারী ৫ হাজার ১১৪ জন।
ইসির দেয়া হিসাব অনুযায়ী, পঞ্চগড়ে বিলুপ্ত ছিটমহলে নাগরিকের সংখ্যা ১৯ হাজার ৮৫২ জন। এর মধ্যে তথ্য সংগ্রহ হয়েছে ৯ হাজার ৬০ জনের। নিবন্ধিত হয়েছেন ৭ হাজার ১৭ জন। লালমনিরহাটে ৮ হাজার ৪৫২ জন নাগরিকের মধ্যে তথ্য সংগ্রহ হয়েছে ৭৬১ জনের। ছবি তুলে নিবন্ধিত হয়েছেন ৬৯৪ জন। কুড়িগ্রামে সিটের অধিবাসী ৭ হাজার ৭৭২ জন। তথ্য নেয়া হয়েছে ৩ হাজার ১০২ জনের। এর মধ্যে ছবি তুলে নিবন্ধিত হয়েছেন ২ হাজার ৩৫৪ জন।
দুই দেশের স্থলসীমান্ত চুক্তি অনুযায়ী, গত বছরের ১লা আগস্ট ভারতের ১১১টি ছিটমহল বাংলাদেশের ভূখÐে যুক্ত হয়। একইভাবে ভারতের মধ্যে থাকা বাংলাদেশের ৫১টি ছিটমহল ভারতের অংশ হয়ে যায়। বিলুপ্ত ১১১টি ছিটমহলে আঠারো বছরের ঊর্ধ্বে নাগরিকদের ভোটার তালিকাভুক্ত করতে তথ্য সংগ্রহ চলে গত ১০ই জুলাই থেকে ১৬ই জুলাই পর্যন্ত। ছবি তোলা ও বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন চলে ১৭ই জুলাই থেকে ২৫শে জুলাই পর্যন্ত। ৩৭ হাজারেরও বেশি নাগরিকের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোটার তালিকাভুক্ত করার জন্য তথ্য সংগ্রহ ও নিবন্ধনের কাজ শেষ করেছেন নির্বাচন কর্মকর্তারা। এর মধ্যে ভোটারযোগ্য ১৩ হাজার ১০৮ জনের তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। ছবিসহ নিবন্ধিত হয়েছেন ১০ হাজার জনের বেশি। তারা ভোটার তালিকাভুক্ত হয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র পাবেন। বাকি আড়াই হাজার এখনও ছবি তুলতে আসেননি।
গতকাল নিবন্ধিত নাগরিকদের খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হয় জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায়ে।
ইসি কর্মকর্তারা জানান, যারা এখনও ছবি তুলেননি, তারাও আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে নির্বাচনী অফিসে এসে নিবন্ধিত হতে পারবেন। বাদ পড়ারাও চাইলে ভোটার হওয়ার সুযোগ রয়েছে। যারা নিবন্ধিত হয়েছেন, তাদের বিষয়ে দাবি-আপত্তিও করা যাবে এ সময়।
বিলুপ্ত ছিটবাসী পালন করলো স্বাধীনতা দিবস
ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি জানান, অধুনালুপ্ত নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের ৩১নং নগর জিগাবাড়ি ছিটমহলের বাসিন্দা পারুল বেগম (২৭)। নতুন বাংলাদেশি হওয়ার পর উন্নয়ন প্রাপ্তিতে সন্তোষ প্রকাশ করে পারুল জানালেন উচ্ছ¡াসের কথা। জানতে চাইলে অকপটে উত্তর। মাত্র এক বছরে ঘরে বিদ্যুতের আলো, বাড়িতে স্বাস্থ্যকর্মী আসছে, খোঁজ খবর নিচ্ছে। পাশে বিদ্যালয় হচ্ছে। শুধু পারুল নন, সরকারের সফলতার কথা জানালেন ফরিদুল ইসলাম, জয়নাল আবেদীন, রফিকুল ইসলামসহ অনেকে। তাদের কথা আমরা যা পাচ্ছি সেটা অব্যাহত থাকলে কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছতে সময় লাগবে না। বছর ঘুরে ১লা আগস্ট সোমবার বিলুপ্ত ছিটবাসীদের প্রথম বর্ষপূর্তির দিনটি তারা স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করেছে। সকালে জাতীয় পতাকা উত্তোলন শেষে বিজয় র‌্যালি করা হয় ছিটবাসীদের উদ্যোগে। ৩১ নম্বর নগর জিগাবাড়ির জয়নাল আবেদীনের বাড়ির উঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন। পরে বিজয় র‌্যালি গ্রামের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে আলোচনা সভায় মিলিত হয়। নগর জিগাবাড়ি ছিটবাসীদের সভাপতি রফিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনায় ২৯নং ছিটমহলের মিজানুর রহমান, টেপাখড়িবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম শাহিন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ময়নুল হক বক্তব্য দেন। উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, যোগাযোগ ব্যবস্থা, স্বাস্থ্য, শিক্ষা, স্যানিটেশন, অবকাঠামো, ঋণ সুবিধা, আত্মকর্মসংস্থানমূলক কর্মকাÐসহ নানান কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীর উন্নয়নে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, সরকারের গৃহীত উন্নয়ন পরিকল্পনার মধ্যে অধিকাংশই বাস্তবায়ন হয়েছে। কিছু কাজ চলমান অবস্থায়। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাকিগুলো সম্পন্ন হবে। তবে জাতীয় পরিচয়পত্র প্রণয়নের কাজ শেষ হলে বিলুপ্ত ছিটবাসী ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন।
ফুলবাড়ীতে ছিটমহল বর্ষপূর্তি উদযাপন
ফুলবাড়ী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে বাংলাদেশ-ভারতের ১৬২টি ছিটমহল বিনিময়ের এক বছর পূর্তিতে দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচির আয়োজন করেছে অধুনালুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ারছড়ার অধিবাসীরা। সুদীর্ঘ ৬৮ বছরের অবরুদ্ধ জীবন থেকে মুক্তি পেয়ে নতুন নাগরিকত্ব পাওয়ার ঐতিহাসিক এ দিনের স্মৃতি ধরে রাখার জন্য উৎসব-আনন্দ চলছে প্রতিটি ঘরে ঘরে। এ উপলক্ষে গত সোমবার রাত ১২টা ১ মিনিটে অধুনালুপ্ত ছিটমহল দাসিয়ারছড়ার কালিরহাট বাজারে ৬৮টি মোমবাতি জ্বালিয়ে কর্মসূচির শুভ উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুড়িগ্রাম জেলা পরিষদ প্রশাসক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি জাফর আলী। এ সময় সাবেক ছিটমহল বিনিময় আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা খান, সভাপতি মইনুল হক, বিআরডিবি চেয়ারম্যান হারুন অর- রশিদ, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি চাষী করিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানী সরকার, সভাপতি আতাউর রহমান শেখ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেবেন্দ্র নাথ উরাঁও বক্তব্য রাখেন। সকাল ৯টায় বিলুপ্ত ছিটমহলের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে একযোগে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: