অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

বাণিজ্য মেলা: ছুটির দিনে ক্রেতা-দর্শনার্থীর ঢল

Print

নিজস্ব প্রতিবেদক : ক্রেতা-দর্শনার্থীরাই মেলার প্রাণ। মেলা শুরুর পর প্রথম সাপ্তাহিক ছুটির দিনেই প্রাণ ফিরে পেয়েছে ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা। যদিও এখনো নির্মাণকাজ পুরো শেষ হয়নি। তবে আজ শুক্রবার ক্রেতা-দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখর ছিলো মেলা প্রাঙ্গণ। সকাল থেকেই মেলায় প্রবেশ করতে থাকেন ক্রেতা-দর্শনার্থীরা। প্রথম ঘণ্টায় উপস্থিতি কম থাকলেও সময় বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঢল নামে ক্রেতা-দর্শনার্থীর।
ছুটির দিনে অফিস ও কাজের চাপ না থাকায় অনেকেই পরিবার-পরিজন নিয়ে মেলায় আসেন আজ। স্কুল, কোচিংয়ে ক্লাস না থাকায় অনেক শিক্ষার্থী দল বেঁধে এসেছেন মেলায়।
মেলা প্রাঙ্গণ ঘুরে দেখা যায়, গৃহস্থালি এবং শিশু ও নারী সামগ্রীর স্টলগুলোতে ভিড় বেশি। ইলেকট্রনিক্স পণ্য, রান্নার সামগ্রী ও পোশাকের দোকানগুলোতেও এদিন চোখে পড়ার মতো ভিড় ছিল। তবে দেশি স্টল ও প্যাভিলিয়নের মতো জমজমাট অবস্থা দেখা যায়নি বিদেশি প্যাভিলিয়নগুলোয়।
মেলায় আসা মো. মুহিবুর রহমান বলেন, পুরো বছরই বাণিজ্য মেলার দিকে তাকিয়ে থাকি কখন শুরু হবে। শুরুর দিন থেকে পরিবারের সদস্যরা ঘুরতে আসার আবদার করে। তাই আবদার পূরণ করতে আজ মেলায় এসেছি। তবে কেনাকাটার খুব একটা ইচ্ছা নেই। আজ ঘুরে ঘুরে দেখাই মূল উদ্দেশ্য। মেলার শেষের দিকে কেনাকাটা করার ইচ্ছা আছে।
তিনি জানান, এক ছেল ও এক মেয়ে নিয়ে তার সংসার, সহধর্মিনী গৃহিণী। দুই সন্তানই স্কুলে পড়ে। পুরো সংসার চলে তার একার আয়ের ওপর। চলতি মাসের বেতন পেয়েছেন ৩ তারিখে। বেতনের টাকার একটি অংশ মেলার জন্য বরাদ্দ করে রেখেছেন।
ছেলে-মেয়ে নিয়ে মেলায় ঘুরতে এসেছেন মাহফুজ আহমেদ। তিনি বলেন, ছুটির দিন থাকায় বাচ্চাদের নিয়ে মেলায় এসেছি। বাচ্চাদের জন্য খেলনা ও পোশাক কিনেছি। বাসার জন্য একটি রাইস কুকার ও কিছু প্লাস্টিকের সামগ্রী কিনেছি। আজ আর কিছু কিনবো না। পরে আবার আসবো।
মেলায় দল বেঁধে ঘুরতে দেখা গেছে শিক্ষার্থীদের। অনেকে কিনছে আবার স্টলগুলো ঘুরে ঘুরে দেখছে কেউ কেউ। সিটি কলেজের এক শিক্ষার্থী বলেন, আজ ছুটির দিন। কলেজ বন্ধ, নেই কোচিংয়ের প্যারাও। তাই বন্ধুরা মিলে মেলায় ঘুরতে এসেছি। কোনো কিছু কেনার উদ্দেশ্য নেই। মেলার মাঠ ও বিভিন্ন স্টল ঘুরে ঘুরে দেখবো। যতক্ষণ ভালো লাগে বন্ধুরা মিলে আড্ডা দেবো, আনন্দ করবো। মাঝে মধ্যে এটা-ওটা কিনে খাবো।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.