অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ১৫ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জিলহজ্জ, ১৪৪২ হিজরী

জল-দানবের জলে ফেরা

Print

স্পোর্টস ডেস্ক : অলিম্পিকের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি স্বর্ণ জয়ের রেকর্ড মাইকেল ফেল্পসের। বিশ্বের সবচেয়ে বড় এ ক্রীড়া আয়োজনের তিন আসরে জিতেছেন ১৮ স্বর্ণসহ মোট ২২ মেডেল। অথচ যুক্তরাষ্ট্রের এ জল-দানবের এবারের অলিম্পিকে পুলে নামার কথাই ছিল না। দুই বছর আগে হুট করেই সাঁতার থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়ে ফেলেন। অলিম্পিক ইতিহাসের সেরা এ ক্রীড়াবিদের জীবনটা অন্যদিকে মোড় নিয়েছিল। সাঁতার ছাড়ার পর বাবার সঙ্গে ঝামেলা বাধিয়ে আলাদা হয়ে যান। মাদক গ্রহণ করে গাড়ি চালানোর দায়ে পুলিশের হাতে আটক হন। ছোটবেলার একটি রোগ তারমধ্যে ফের জেগে ওঠে। যে রোগের কারণে সবকিছুতে মাথা গরম ও হুটহাট কাজ করার প্রবণতা বেড়ে যায়। এভাবে চলে প্রায় বছর দেড়েক। এরপর আবার পরিবর্তন। সবকিছু ঠিক করে হুট করেই সাঁতারে ফেরার ঘোষণা দেন। লক্ষ্য- রিও অলিম্পিক। কিন্তু ইচ্ছার কথা জানালেই তো হয় না। দীর্ঘদিন সাঁতারের বাইরে শরীর মুটিয়ে গিয়েছিল। শরীরের মেদ ঝরালেন প্রথম। এরপর নামলেন তার প্রিয় পুলে। নতুন করে ফিরে নিজেকে প্রমাণ করার লড়াই তখন। শরীর ফিট করে প্রথমেই অংশগ্রহণ করেন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সাঁতার প্রতিযোগিতায়। সেখানেই ফেল্পসের বাজিমাত। ১০০ ও ২০০ মিটার বাটারফ্লাই এবং ২০০ মিটার মিডলেতে করলেন বছরের সেরা টাইমিং। এরপর যুক্তরাষ্ট্রের সাঁতার দলের সঙ্গে শুরু করেন নিয়মিত অনুশীলন। ফেল্পস অলিম্পিকে প্রথম অংশগ্রহণ করেন ২০০০ সালে সিডনিতে। বয়স তখন মাত্র ১৫ বছর। সেবার কোনো মেডেল জিততে পারেনি। কিন্তু অলিম্পিকের পরের আসরে এথেন্সে (২০০৪) নিজের জাত চেনান। ৬ স্বর্ণসহ জেতেন ২ ব্রোঞ্জ মেডেল। এরপর ২০০৮-বেইজিং অলিম্পিকে গড়েন ইতিহাস। এই আসরে সাঁতারের আটটি স্বর্ণই জিতে নেন তিনি। অলিম্পিকের ইতিহাসে এক আসরে সর্বোচ্চ ৮ স্বর্ণ জয়ের রেকর্ড গড়েন তিনি। একই সঙ্গে এই আসরে তিনি মোট ৭টি বিশ্ব রেকর্ড গড়েন। ২০১২ সালে লন্ডনে জেতেন ৪ স্বর্ণ। এই নিয়ে অলিম্পিকের চার আসরে অংশগ্রহণ করে তিন আসরে জিতেছেন ১৮ স্বর্ণসহ মোট ২২টি মেডেল। অলিম্পিকের ইতিহাসে সর্বাধিক স্বর্ণ জয়ের রেকর্ড এটি। আর এবার তিনি অংশগ্রহণ করছেন পঞ্চম অলিম্পিকে। যুক্তরাষ্ট্রের পুরুষ সাঁতারুদের মধ্যে অলিম্পিকের পাঁচ আসরে অংশগ্রহণ করা প্রথম সাঁতারু তিনি। এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের নারী সাঁতারু ড্যারা তোরেস সর্বোচ্চ পাঁচ আসরে অংশগ্রহণ করেন। ফেলপেসর বয়স এখন ৩১ বছর। কয়েকদিন আগে পুত্র সন্তানের বাবা হয়েছেন তিনি। অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করা পুরুষ সাঁতারুদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি বয়সী এবার তিনি। এই বয়সে বেশি ঝুঁকি নেননি তিনি। মাত্র তিন ইভেন্টে নামবেন ফেলপস। ১০০ ও ২০০ মিটারের বাটারফ্লাইয়ের সঙ্গে লড়বেন ২০০ মিটার ব্যক্তিগত মিডেলেতে। ‘বুড়ো’ ফেল্পসের দিকে এবারও তাকিয়ে ভক্তরা।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: