অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই সফর, ১৪৪৩ হিজরী

ঝড় ও শিলাবৃষ্টির তাণ্ডবে নিহত ৬, আহত ৩০০

Print

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে ব্যাপক শিলাবৃষ্টি হয়েছে। এতে অন্তত ছয়জনের মৃত্যু এবং ৩০০ জন আহত হয়েছেন। রাজধানীর বাইরে সিলেট, ঝিনাইদহ, ঠাকুরগাঁও, লালমনিরহাট, মাগুরা, রাজশাহী ও মেহেরপুরে ঝড়ের সঙ্গে বজ্র ও শিলাবৃষ্টি হয়েছে।
সিলেটে ঝড়ের আঘাতে টিনের চালে এক পথচারী নিহত এবং এক শিশু পুকুরে ডুবে মারা গেছে। শিলার আঘাতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে মাগুরা ও দিনাজপুরে।
আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শনিবারও দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঝড়ো হাওয়া ও শিলা বৃষ্টি হতে পারে। হালকা বৃষ্টিতে অস্বস্তিকর গরমের রেশ কাটলেও কয়েকদিন পর ফের তাপমাত্রা বাড়বে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।
শুক্রবার বিকাল সাড়ে ৩টার পর থেকেই ঢাকায় বৈরী আবহাওয়া শুরু হয়। বিকাল ৪টার পরে আকাশ ঢেকে যায় কালো মেঘে। ঘণ্টারও বেশি সময় হালকা বৃষ্টির মধ্যে ঝড়ও বয়ে যায়।
বিকালে এই আবহাওয়ার মধ্যে পরীক্ষা কেন্দ্রে বিদ্যুৎ না থাকায় রূপালী ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা বাতিল হয়। অন্ধকারাচ্ছন্ন পরিবেশে পরীক্ষার্থীরা দেখতে পারছিলেন না বলে পরীক্ষা বাতিল করা হয়। ব্যাংকার্স রিক্রুটমেন্ট কমিটির আহবায়ক মোশাররফ হোসেন খান জানান এ তথ্য জানান।
ঝড়ের মধ্যে ঢাকার হাজারীবাগে একটি গাছ ভেঙে পড়েছে।
শুক্রবার বিকালে সিলেটে ঝড়ের সময় ওসমানীনগর উপজেলার দশহাল গ্রামে টিনের চাল পড়ে সাবিয়া বেগম নামের এক নারী এবং উমরপুর গ্রামে পানিতে ডুবে হাসান আহমদ নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়। ওসমানীনগর থানার ওসি শহিদ উল্লাহ জানান, ঝড়ে গাছপালা উপড়ে পড়েছে, টিনের চাল উড়ে গেছে অন্তত ৩০টি ঘরের।
মাগুরা সদর উপজেলায় ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে শিলাবৃষ্টি হয় সন্ধ্যা ৬টার দিকে। এ সময় মাঠে কাজ করছিলেন ডহরসিংড়া গ্রামের আকরাম হোসেন (৩৫)। শিলার আঘাতে আহত হওয়ার পর তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এই উপজেলায় শিলার আঘাতে আরও বেশ কয়েকজন আহত হন। এছাড়া ঝড়ো হাওয়ায় বহু গাছপালাসহ অনেক কাঁচা ঘরবাড়ি ভেঙেছে।
দুপুরে দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলায় শিলার আঘাতে মধ্যবয়সী এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়। এই জেলায় শিলার আঘাতে আহত হয়েছেন আরও অন্তত ২০ জন।
পার্বতীপুরের চÐিপুর ইউনিয়নের চৈতাপাড়া গ্রামে ঝড়-বৃষ্টির মধ্যে ঘরের টিনের চালা মেরামত করছিলেন সৈয়দ আলী (৫৫)। এ সময় মাথায় শিলার আঘাতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।
দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক আবু নঈম মো. আবদুছ ছবুর বলেন, দুপুরে শুরু হওয়া ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে জেলার ১৩টি উপজেলার প্রায় সবকটিতে কমবেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বেশি ক্ষতি হয়েছে নবাবগঞ্জ উপজেলায়। জেলার গম, ভুট্টা, বোরো ক্ষেতসহ বিভিন্ন ফসল এবং আম ও লিচুর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কয়েকশ ঘর-বাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
ঝড়ো হাওয়া ও শিলা বৃষ্টিতে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে অন্যান্য জেলাগুলোতেও। শিলার আঘাতে টিনের চালা ফুটো হয়েছে পাবনা ও নীলফামারীতে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: