অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১২ই সফর, ১৪৪৩ হিজরী

দিনাজপুর ও ঠাকুরগাঁও বালু উত্তোলনের মহোৎসব

Print

 স্টাফ রিপোর্টার : দিনাজপুর ও ঠাকুরগাঁও  জেলার টাঙ্গন নদীতে চলছে বালু উত্তোলনের মহোৎসব। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র এ কাজের সাথে জড়িত বলে অভিযোগ এলাকাবাসী।  এতে জেলা দুটির ফসলী জমি,রাস্তা,কালভাট সহ বেশ কিছু স্থাপনা হুমকীর মুখে আছে। সরকার বঞ্চিত রাজস্ব।

তথ্যানুসন্ধানে জানা গেছে,দিনাজপুর জেলার বোচাগঞ্জ উপজেলা ও ঠাকুরগাঁও  জেলার  পীরগঞ্জ  এর  মধ্যস্থল দিয়ে বয়ে যাওয়া টাঙ্গন নদী থেকে উত্তোলন করা হচ্ছে। কোন প্রকার টেন্ডার ছাড়াই স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্র এ কাজ করছে। বালু উত্তোলনকারীরা হলো উত্তর বৈরচুনা গ্রামের জাফর, আইয়ুব আলী, নুর ইসলাম ও চন্ডিপুর   গ্রামের বাদশা।

বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন-২০১০ এর ধারা ৫ এর ১ উপধারা অনুযায়ী পাম্প বা ড্রেজিং বা অন্য কোনো মাধ্যমে ভূগর্ভস্থ বালু বা মাটি উত্তোলন করা যাবে না। ধারা ৪ এর (খ) অনুযায়ী সেতু, কালভার্ট, ড্যাম, ব্যারেজ, বাঁধ সড়ক, মহাসড়ক, বন, রেললাইন ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সরকারি ও বেসরকারি স্থাপনা হলে অথবা আবাসিক এলাকা থেকে সর্বনিম্ন এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এসব নিয়মের কোন তোয়াক্কা করছে না বালূ উত্তোলনকারীরা।

 

স্থানীয়দের  অভিযোগ, স্থানীয় প্রশাসন অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন বন্ধ করার নির্দেশ দিলেও তারা তা বন্ধ করেনি।  বরং দিন দিন এই ব্যবসা প্রসার হচ্ছে।

বালু ব্যবসার সাথে জড়িত ,ট্রাক্টর চালকরা জানায়, তারা প্রতি ট্রাক্টর ১০০ টাকা থেকে ২০০ টাকা করে বালু কেনে। তারা ক্রয়কৃত বালু ট্রাক প্রতি ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা দড়ে বিক্রি করে।

বৈরচুনা জসাপাড়া গ্রামের কৃষক মকবুল হোসেন জানায়,  বালু উত্তোলনের ফলে আমাদের অনেক ফসলি জমি ইতোমধ্যে নদী গর্ভে বিলিন হয়ে গেছে। আরো অনেক জমি হুমকীর মুখে।

বৈরচুনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জালাল উদ্দীন জানান, নদীটি পার্শ্ববর্তী বোচাগঞ্জ উপজেলার সীমানার মধ্যে রয়েছে। এ বিষয়ে আমার কিছু করার নাই। তবে আমি পীরগঞ্জ বিষয়টি পীরগঞ্জ সহকারি ভূমি কমিশনারকে জানাবো।

রনগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আনিসুর রহমান জানান, আমার প্রজেক্টের জন্য কিছু বালু প্রয়োজন ছিল তাই কিছু ট্রাক্টর দিয়ে বালু উত্তোলন করেছি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: