Thursday ২১ March ২০১৯
  • :
  • :
অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৭ই চৈত্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ, ১৩ই রজব, ১৪৪০ হিজরী

পুলিশের কারাভ্যান ভেঙে দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নিল বিএনপি নেতাকর্মীরা

Print

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রিজন ভ্যানের তালা ভেঙ্গে দুই কর্মীকে ছিনিয়ে নিয়েছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। এ সময় পুলিশের ওপরও হামলা চালায় তারা। মঙ্গলবার বিকেলে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আদালত থেকে ফেরার পথে সুপ্রিমকোর্টের সামনে এ ঘটনা ঘটে। পরে খালেদা জিয়ার গাড়ি বহর ওই এলাকা থেকে সরে পড়ার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানাড, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার হাজিরাকে কেন্দ্র করে পূর্বের মতোই হাইকোর্ট এলাকায় জড়ো হয় দলের নেতাকর্মীরা। এ সময় বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সাবেক ছাত্রনেতা সোহাগ মজুমদার (৩৮) ও মিলন (৩৮) নামের তিনজনকে আটক করে পুলিশ। তাদেরকে প্রিজন ভ্যানে রাখা হয়। এরপর হাজিরা শেষে বিএনপি চেয়ারপারসন বাসায় ফেরত যাওয়ার পথে একদল বিএনপি কর্মী ওই প্রিজন ভ্যানে ভাঙচুর চালিয়ে তাদের ছিনিয়ে নিয়ে যায়।
সকাল থেকেই প্রেস ক্লাবের সামনে জড়ো হতে থাকেন বিএনপিকর্মীরা। খালেদা জিয়া আদালত থেকে সাড়ে ৩টার দিকে বের হয়ে হাইকোর্ট এলাকায় আসার আগ মুহূর্তে কর্মীরা রাস্তায় নেমে পড়ে।
এ বিষয়ে শাহবাগ থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) জাফর আলী বিশ্বাস বলেন, হাইকোর্টের আশপাশ থেকে কয়েকজন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার সুপ্রিম কোর্টের সামনে ব্যাপক নিরাপত্তা জোরদার করা হয়।
রমনা জোনের ডিসি মারুফ হোসেন সরদার সাংবাদিকদের জানান, খালেদা জিয়া কোর্ট থেকে ফেরার পথে আমরা যথেষ্ট ধৈর্যশীল ছিলাম। আমাদের একটি প্রিজন ভ্যান ভাঙচুর করে। আটক থাকা দুইকর্মীকে তারা নিয়ে গেছে। তারা কোনও মামলার আসামি ছিল কিনা, তা এ মুহূর্তে বলতে পারবো না। আমাদের দুজন সদস্যও আহত হয়েছেন।
রমনা জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (এডিসি) নাবিদ কামাল শৈবাল আসামি ছিনিয়ে নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, মিছিল নিয়ে যাওয়ার সময় তারা ভ্যানটি ভাঙচুর করে। ভেতরে কোনো আসামি ছিল না।
এদিকে, খালেদা জিয়ার গাড়িবহর চলে যাওয়ার পর তিন জনকে আটক করা হয়। তাদের নাম বাবু, জাভেদ এবং হুমায়ুন। তবে কী কারণে তাদের আটক করা হয়েছে, তা জানা যায়নি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.