অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৭ই রমযান, ১৪৪০ হিজরী

প্রতিশোধ নিতে দামুড়হুদায় যুবলীগকর্মীকে কুপিয়ে জখম

Print

চুয়াডাঙ্গা থেকে সংবাদদাতা : পূর্বের পিটুনির প্রতিশোধ নিতে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলা শহরের যুবলীগকর্মী মাসুদ রানা ভুট্টোকে (৩৫) ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছে একই শহরের খাঁপাড়ার অ্যাডভোকেট আবু তালেবের ছেলে বাঁধন (২০)। গুরুতর আহত ভুট্টোকে চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে যশোরের আড়াইশ শয্যা হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।
শুক্রবার বিকাল ৫টার দিকে দামুড়হুদা উপজেলা শহরের বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। আহত মাসুদ রানা ভুট্টো দামুড়হুদা উপজেলার শহরের দশমীপাড়ার আফজাল হোসেনের ছেলে ও যুবলীগকর্মী।
প্রত্যক্ষদর্শীদের উদ্ধৃতি দিয়ে দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ আকরাম হোসেন জানান, শুক্রবার বিকাল আনুমানিক ৫টার দিকে মাসুদ রানা ভুট্টো, তার দুই বন্ধু বাসস্ট্যান্ড এলাকায় চায়ের দোকানে বসেছিলো। ওই সময় বাঁধনের সহযোগী চুয়াডাঙ্গার বিপ্লব ও পিয়াস নামের দুই যুবকও চা পান করছিলো। ওই মুহ‚র্তে দামুড়হুদা উপজেলা শহরের খাঁপাড়ার অ্যাডভোকেট আবু তালেবের ছেলে বাঁধন (২০) এসে ভুট্টোকে বলে চাচা ভালো আছেন। একথা বলে বাঁধন ওই চায়ের দোকানের পেছনে চলে যায়। তার পরপরই ভুট্টো দোকানের পাশের গলি দিয়ে ধূমপান করতে করতে মোবাইল ফোনে কথা বলার জন্য দোকানের পেছনে যায়। দোকানের পিছনে যাওয়ার পরপরই বাঁধন তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। ভুট্টোর চিৎকারে বাঁধন ও তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়। সাথে সাথে স্থানীয়রা ভুট্টোকে মোটরসাইকেলে করে দামুড়হুদা মডেল থানায় নিয়ে গেলে থানা পুলিশ তাকে চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠায়। পরে সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে উন্নত চিকিৎসার জন্য যশোরে আড়াইশ শয্যা হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। তিনি আরো জানান, পূর্ব শত্রæতার কারণে এ ঘটনাটি ঘটেছে।
গত ৫ মাস আগে মাসুদ রানা ভুট্টো অ্যাডভোকেট আবু তালেবের ছেলে বাঁধনকে বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেছিলো। ওই সময় বাঁধন ৩ মাস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলো। তারই জের ধরে বাঁধন ও তার সহোযোগীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে প্রাথমিক তদন্তে প্রতীয়মান হয়েছে। তাদের আটক করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। তিনি আরো বলেন, এটা কোনো রাজনৈতিক ঘটনা নয়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.