অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১১ই সফর, ১৪৪২ হিজরী

প্রদীপের বিরুদ্ধে মামলা করলেন তারই বোন!

Print

স্টাফ রিপোর্টার : অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ হত্যার দায়ে বরখাস্ত হওয়া টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাসের বিরুদ্ধে এবার দুদকে অভিযোগ করেছেন তারই সৎ বোন রত্নাবালা প্রজাপতি। কোটি টাকার সম্পত্তি জোর করে দখলের অভিযোগের অনুসন্ধানের অনুমতি চেয়ে এরই মধ্যে একটি চিঠি দুদকের প্রধান কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। দুদকের চট্টগ্রাম জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, টেকনাফে সাবেক সেনা কর্মকর্তা হত্যার অন্যতম আসামি ওসি প্রদীপের বিরুদ্ধে তার সৎ বোন রত্নাবালা প্রজাপতি মঙ্গলবার দুদক সমন্বিত অঞ্চল, চট্টগ্রাম-১ এর কার্যালয়ে কোটি টাকার সম্পত্তি জবর দখলের অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে আরও বলা হয়, প্রদীপ তার ক্ষমতাবলে চট্টগ্রাম মহানগরীর মুরাদপুরের মোহাম্মদপুর এলাকায় রত্নাবালার ১২ শতং জমি এবং একটি ৪ তলা ভবন দখল করে স্ত্রীর নামে রেজিস্টার করে ফেলে। প্রদীপের স্ত্রী চুমকির নামে ওই দখলকৃত সম্পত্তি ১ কোটি ৩০ লাখ টাকায় কিনেছেন বলে বায়না করা হয়। কিন্তু বায়না অনুযায়ী এক টাকাও পান নি রত্নাবালা।

রত্নাবালা বলেন, আমার বাবা ছিলেন প্রেমলাল প্রজাপতি। মা যুগলরানী প্রজাপতি। আমার বাবার মৃত্যুর পর হরেন্দ্র লাল দাশ নামে এক ব্যক্তিকে বিয়ে করেন মা। ওই সংসারে প্রদীপসহ তিন সন্তান রয়েছে।

উত্তরাধিকার সূত্রে আমার বাবার ১২ শতক জমি ও ৪ তলা বাড়ির মালিক আমি। কিন্তু ২০১৪ সালে ওই সম্পত্তি প্রদীপ ক্ষমতার অপব্যবহার করে জোর করে দখল করে নেয়। স্ত্রীর নামে ওই সম্পত্তি বায়না করে, ১ কোটি ৩০ লাখ টাকা দিয়ে কেনা হয়েছে এই সম্পত্তি সেটাও উল্লেখ করা হয়। কিন্তু আমি এক টাকাও পাই নাই। উলটো ওই জমিতে ৯টি সেমিপাকা ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিয়েছে প্রদীপ। পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া মুরাদনগরের বাড়িটিও প্রদীপের কুকর্মের সহযোগী আলী আকবর নামে এক ব্যক্তিকে দিয়ে দখলে রেখেছেন। আলী আকবর ইয়াবা মামলায় ৯ মাস জেলও খেটেছে।

রত্নাবালা বলেন, সম্পত্তি দখল করতে প্রদীপ আমার ছেলে বিবেক রঞ্জন চৌধুরীকে সাজানো নারী নির্যাতন মামলার আসামি করেছে। নিলুফা নামে টেকনাফের এক নারীকে দিয়ে এ মামলাটি করায়। মামলায় আমার ছেলেকে কারাগারে পাঠানো হয়েছিল। আমার মেয়ে বেবী চৌধুরীকেও নানা লাঞ্ছনার শিকার হতে হয়েছে। তাদের হামলায় বেবী চৌধুরী আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তিও ছিল।

উল্লেখ্য, মানি লন্ডারিং এর দায়ে ওসি প্রদীপ ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করেছিল দুদক। ওই মামলায় আগামি ১৪ সেপ্টেম্বর তাকে আদালতে তোলার কথা রয়েছে। কিন্তু মামলা দায়েরের পর থেকেই আত্মগোপনে আছেন প্রদীপের স্ত্রী চুমকি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: