অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ২৬শে আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৪ঠা রবিউল-আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরী

বিএনপি রাজনৈতিক অপুষ্টিতে আক্রান্ত: নাসিম

Print

দৈনিক চিত্র রিপোর্ট : সব বয়সের মানুষের জন্য পুষ্টিগুণ নিশ্চিত করার উপর জোর দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী। তিনি বলেন, সব বয়সের মানুষই অপুষ্টিতে ভুগতে পারে। মা ও শিশুর পুষ্টি নিশ্চিত করার পাশাপাশি প্রবীনদের পুুষ্টিসেবা নিয়েও কাজ করতে হবে। প্রত্যাশিত সেবাযত্ন থেকে বঞ্চিত হয়ে অপুষ্টিতে আক্রান্ত হন অনেক প্রবীন নারী – পুরুষ।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর বিয়াম মিলনায়তনে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত ‘জাতীয় পুষ্টি নীতি-২০১৫’ অবহিতকরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। স্বাস্থ্যসচিব সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, এমপি, খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট মো: কামরুল ইসলাম, এমপি, স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, এমপি। সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন স্বাচিপের সভাপতি এবং বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশনের (বিএমএ) মহাসচিব অধ্যাপক ডা: এম ইকবাল আর্সলান, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা: দীন মো: নুরুল হক, ইউনিসেফ প্রতিনিধি এডুওয়ার্ড বেগবেডার, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিনিধি ড. এন পারানিয়েথেরান, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি বিষয়ক সংস্থার(এফএও) প্রতিনিধি মাইক রবসন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব রোকসানা কাদের এবং মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইপিএইচএন পরিচালক ডা: মো: কামরুল ইসলাম। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের উপ পরিচালক ডা: মো: মওদুদ হোসেন।
কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরী বলেন, পুষ্টি প্রত্যেক মানুষের মৌলিক অধিকার। খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ না হলে পুষ্টি সমস্যার সমাধান হবে না। তাই খাদ্য নিরাপত্তা ও সম্পদে সবার অধিকার নিশ্চিত করেছে বর্তমান সরকার। বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ও ক্রয় ক্ষমতা বেড়েছে। দু’ বেলা খাবার নিয়ে মানুষ আজ সারাদিন চিন্তা করে না। এখন নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করা দরকার। বর্তমান সরকার অবশ্য এ বিষয়ে বেশ কিছু কঠোর আইন প্রণয়ন করেছে। নিরাপদ খাদ্য ও পুষ্টি নিশ্চিতকরণে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় থাকা দরকার বলে মনে করেন কৃষিমন্ত্রী।
বাংলাদেশকে আত্মনির্ভরশীল দেশ হিসেবে চিহ্নিত করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ। আমরা এখন পুষ্টিতে সমৃদ্ধ হতে চাই। এক সময় ক্ষুধা-দারিদ্রের দেশ ছিল বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বে ওই অধ্যায় থেকে আমরা মুক্তি পেয়েছি। আমরা এখন আত্মবিশ্বাসী জাতিতে পরিণত হয়েছি।
মাতৃদুগ্ধের উপর জোর দিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, শিশুদেরকে মাতৃদুগ্ধ থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়। যেসকল মা বাচ্চাদের বুকের দুধ খাওয়ান না, তাদের মানসিকার পরিবর্তন আনা দরকার। ব্যাপক প্রচার চালিয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে হবে। পুষ্টি সমৃদ্ধ খাবার পেতে দামী খাবার খেতে হয় না। আমাদের বাড়ীর চারপাশেই স্বল্প খরচে পুষ্টি সমৃদ্ধ ফলমূল, শাক সবজি পাওয়া যায়।
স্বাস্থ্য, কৃষি ও খাদ্য সেক্টরের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, দেশের স্বাস্থ্য সেক্টরের সফলতা আজ জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে প্রশংসিত। একের পর এক আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কৃষি সেক্টরের সফলতায় শান্তিতে রয়েছে দেশের কৃষককূল। সারা বছরই বিভিন্ন ফসল উত্পাদিত হয়। পতিত পড়ে থাকে কৃষিজমি। খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ করার পাশাপাশি পুষ্টিতেও বাংলাদেশকে সমৃদ্ধ করে তোলা সম্ভব। সমন্বিতভাবে কাজ করলে এক্ষেত্রেও প্রত্যাশিত সফলতা আসবে।
বিএনপি আদর্শের রাজনীতিবিদরা রাজনৈতিক অপুষ্টিতে আক্রান্ত উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, অপুষ্টিতে আক্রান্ত হওয়ায় তাঁরা দেশে জ্বালা পোড়াও ও বিভিন্ন ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড চালায়। তাঁদেরকে এ ধরনের অপুষ্টি থেকে মুক্ত করা দরকার বলে মনে করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।
খাদ্যমন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, জাতীয় পুষ্টিনীতি বাস্তবায়ন হলে দেশে পুষ্টিমানের উন্নয়ন ঘটবে। নিরাপদ ও সুষম খাদ্য নিশ্চিত হবে। খাদ্যের গুণগত মান বাড়বে। খাদ্যে স্বয়ং সম্পূর্ণ হওয়ার পর বাংলাদেশ এখন চাল রফতানিও করছে। খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত হওয়ায় মানুষ এখন পুষ্টিমান খাবারের দিকে নজর দিতে পারছে। পুষ্টিনীতিমালা কার্যকর হলে দেশের মানুষের শারীরিক ও মানসিক অবস্থারও ব্যাপক উন্নতি ঘটবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: