অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ১লা অগ্রাহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৬ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

ভারতের সবচেয়ে গরিব মুখ্যমন্ত্রী!

Print

অনলাইন ডেস্ক : মাণিক সরকার। ভারতের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ। ১৯৯৮ সালের মার্চ মাস থেকে ত্রিপুরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। দেশটির মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টির একজন পলিটব্যুরো সদস্যও এ রাজনীতিক। ২০০৮ সালে তিনি বামফ্রন্টের নেতা হিসেবে শপথ নেন এবং ত্রিপুরায় কোয়ালিশন সরকার গঠন করেন। ২০১৩ সালের লোকসভার নির্বাচনে তিনি চতুর্থবারের মতো মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হন। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে পঞ্চমবারের মতো প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন এই রাজনীতিবিদ।
সম্ভবত বর্তমান সময়ে ভারতের সবচেয়ে গরিব মুখ্যমন্ত্রী ত্রিপুরার মানিক সরকার। যেখানে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে নেতা-মন্ত্রীদের আয়ের পরিমাণ, সেখানে পকেট ফাঁকা মানিক সরকারের। তার হাতে নগদ আছে ১৫২০ রুপি। আর একটি জাতীয় ব্যাংকে তার একাউন্টে জমা আছে মাত্র ২৪১০ রুপি। নিজের কোনো বাড়ি নেই। গত ২০ বছর যাবত তিনি বসবাস করছেন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে তাকে বরাদ্দ দেয়া সরকারি বাসভবনে। তার নেই কোনো চাষযোগ্য জমি। এমন কি তার কোনো মোবাইল ফোন নেই। নেই কোনো ইমেইল একাউন্ট। নেই কোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একাউন্ট। বিধানসভার নির্বাচনে দাখিল করা তার মনোনয়নপত্রে এসব তথ্য দিয়েছেন মানিক সরকার। দাখিল করা এফিডেভিটে তিনি জানিয়েছেন তার মোট সম্পদের পরিমাণ ৩৯৩০ রুপি। বামপন্থি ৬৯ বছর বয়সী এই নেতা বেতন হিসেবে যা পান তার পুরোটাই দান করেন নিজের দল সিপিআই (এম) কে। তবে দল থেকে তিনি ৫ হাজার রুপি ভাতা পেয়ে থাকেন। মানিক সরকার কখনো কোনো ইনকাম ট্যাক্স রিটার্ন জমা দেন নি।
এফিডেভিটে বলা হয়, তার স্ত্রী পাঁচালি ভট্টাচার্য কেন্দ্রীয় সরকারের একজন অবসরপ্রাপ্ত কর্মচারী। তার কাছে রয়েছে নগদ ২০১৪০ রুপি। এ ছাড়া দুটি ব্যাংক একাউন্টে আছে এক লাখ ২৪ হাজার ১০১ এবং ৮৬ হাজার ৪শত ৭৩ দশমিক ৭৮ রুপি। তিনটি ফিক্সড ডিপোজিটে জমা একটি ২ লাখ, একটি ৫ লাখ এবং একটি ২.২৫ লাখ রুপি। স্বর্ণালংকার রয়েছে ২০ গ্রাম। পাঁচালি ভট্টাচার্যের উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত ৮৮৮ দশমিক ৩৫ বর্গ ফুট এলাকার একটি জমি রয়েছে। এখন পর্যন্ত সেখানে অবকাঠামো নির্মাণ খাতে তিনি বিনিয়োগ করেছেন ১৫ লাখ রুপি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.