অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১৯শে জিলহজ্জ, ১৪৪০ হিজরী

যশোর রোডের ঐতিহ্যবাহী গাছ নিয়ে রুল, ৬ মাসের স্থিতাবস্থা

Print

অনলাইন ডেস্ক : দুই সহস্রাধিক শতবর্ষী গাছ কাটার ওপর ছয় মাসের স্থিতাবস্থার (গাছ যে অবস্থায় আছে সে অবস্থায় থাকবে) আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ যশোর রোডের ঐতিহ্যবাহী গাছ কাটা নিয়ে রুলসহ এ আদেশ দেন। রিট আবেদনে পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। এর আগে স্বাধীনতা যুদ্ধসহ শত বছরের ঐতিহ্য-স্মৃতি বিজড়িত যশোর রোডের গাছ কাটা নিয়ে গত সোমবার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শেখ মো. মহিবুল্লাহর পক্ষে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান।
নোটিশে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, যশোরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে বিবাদী করা হয়। যশোর শহর থেকে বেনাপোল পর্যন্ত রাস্তার দৈর্ঘ্য ৩৮ কি.মি। এই রাস্তা সম্প্রসারণ প্রকল্পটি পাস হয় ২০১৭ সালের মার্চ মাসে। রাস্তা সম্প্রসারণের জন্য টেন্ডার অনুমোদনের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে।
আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেন, ওপার বাংলায় সরকার একই রোডে গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো। পরে কলকাতা হাইকোর্ট সরকারের সিদ্ধান্তে স্থগিতাদেশ দেন। আমরা চাই রাস্তা হোক। তবে গাছ রেখেই। কারণ এটি স্বাধীনতার স্মৃতি বিজড়িত সড়ক। যে সড়ক দিয়ে হাজার হাজার এ দেশীয় শরণার্থী ভারতে গিয়েছিলো। এই গাছগুলো সেসব শরণার্থীদের সাক্ষী হিসেবে দণ্ডায়মান। তাই সাত দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ চেয়ে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।
১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এই যশোর রোড দিয়েই লাখ লাখ শরণার্থী ভারতে গিয়ে আশ্রয় নেন। শরণার্থীদের সেই ঢল নিয়ে বিখ্যাত মার্কিন কবি অ্যালেন গিন্সবার্গ সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড নামে একটি কবিতাও লেখেন। পরবর্তীতে গায়ক বব ডিলান এবং অন্যদের সহায়তায় সেই কবিতাকে তিনি গানেও রূপ দিয়েছিলেন।
এর আগেও সড়ক সম্প্রসারণের প্রয়োজনে গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল, কিন্তু বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিবাদের মুখে বলা হয় যে গাছগুলো অক্ষত রেখেই সড়ক সম্প্রসারণ করা হবে।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.