অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৬ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই জমাদিউস-সানি, ১৪৪২ হিজরী

যাবজ্জীবন মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাদণ্ড

Print

স্টাফ রিপোর্টার : দণ্ডবিধির ৪৫ ধারা অনুসারে যাবজ্জীবন মানে স্বাভাবিক মৃত্যু পর্যন্ত কারাভোগ-এর পূর্ণাঙ্গ রায় ঘোষণা করেছেন আপিল বিভাগ। যাবজ্জীবন মানেই আমৃত্যু কারাদণ্ড, এ সংক্রান্ত একটি রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন জানানো হলে সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে পূর্ণাঙ্গ রায় ঘোষণা করেন প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন ৭ জন বিচারপতির একটি বেঞ্চ।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন নতুন অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন এবং ডেপুটি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ। আসামিপক্ষের আইনজীবী হিসেবে ছিলেন খন্দকার মাহবুব হোসেন এবং শিশির মনির।

যাবজ্জীবন মানে ঠিক কতটা সাজা? এ নিয়ে সন্দেহের সূত্রপাত হয় ২০০১ সালে। সে সময় সাভারে জামান নামে এক ব্যক্তিকে গুলি করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় ২০০৩ সালে তিনজনকে মৃত্যুদণ্ড দেন দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনাল। হাই কোর্টে আপিলের পর বিচারিক আদালতের দণ্ড বহাল থাকে। ওই মামলার রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের পর ২০১৭ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি আসামিদের মৃত্যুদণ্ড মওকুফ করে দিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেন সর্বোচ্চ আদালত।

তবে এতে বাদ সাধেন আসামিপক্ষের আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। কারণ রায় ঘোষণার সময় আপিল বিভাগ ‘যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে আমৃত্যু কারাবাস’ এমন মন্তব্য করেন। তখন মাহবুব হোসেন বলেন, যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু (ন্যাচারাল লাইফ) কারাবাস। আমি প্রতিবাদ করে বলেছিলাম, দণ্ডবিধির ৫৭ ধারায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের অর্থ ৩০ বছর। এছাড়া, যাবজ্জীবনের আসামিরা কারাগারে রেয়াত পেয়ে দণ্ড সাড়ে ২২ বছরে নেমে আসে। যদি আমৃত্যুই হয়ে থাকে, তা হলে তাদের রেয়াতের কি হবে? আমি আরও বলেছিলাম, প্রধান বিচারপতির এ মন্তব্য যেন মূল রায়ে না থাকে। তবে যদি থাকে, তা হলে সব আসামির ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য হবে।

তৎকালীন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম তখন বলেছিলেন, সবার ক্ষেত্রে এ রায় প্রযোজ্য হবে কিনা সেটি পূর্ণাঙ্গ রায় না হওয়া পর্যন্ত বলা যাবে না। পরে ২০১৭ সালের ২৪ এপ্রিল সুপ্রীম কোর্টের ওয়েবসাইটে এই মামলার ৯২ পৃষ্ঠার পূর্ণাঙ্গ রায় ঘোষণা করা হয়।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: