অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ১২ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরী

শরীরের কার্যক্ষমতা বাড়ায় কাঁচা আম

Print

অনলাইন ডেস্ক : গ্রীষ্মকালীন ফল আম। তবে এরই মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে কাঁচা আম। পাকা আম খেতে সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর। কিন্তু কাঁচা আমেরও গুণের শেষ নেই। পুষ্টিবিদরা জানান, কাঁচা আমের রস ব্যায়ামের চেয়েও উপকারী। এর রস শরীরকে তীব্র গরমের প্রভাব থেকে রক্ষা এবং পানিশূন্যতা দূর করতে সাহায্য করে। এটি শরীর থেকে অতিরিক্ত সোডিয়াম ক্লোরাইড এবং আয়রন বের হওয়া থেকেও বাঁচায়। গ্রীষ্মকালে প্রচুর ঘাম হয় বলে পানিশূন্যতার সম্ভাবনা থাকে। তাই এ সময় বেশি পরিমাণে আমের রস পান করা উচিত। পাকস্থলির যেকোনো ধরনের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে কাঁচা আম।

এ ছাড়া এটি সকালে বমি বমি ভাব, কোষ্টকাঠিন্য, ডায়রিয়া কমাতে কার্যকরী ভ‚মিকা রাখে। কাঁচা আম হজমশক্তিও বাড়ায়। কাঁচা আমে থাকা নিয়াসিন হৃদরোগের জন্য বেশ উপকারী। এটি হৃদরোগের ঝুঁকি কমাতে এবং খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। কাঁচা আম শুকিয়ে আমচ‚ড় করা হয়। এটি অথবা শুকনো কাঁচা আমের গুড়া স্কার্ভি নামক চর্মরোগ সারাতে ব্যবহার করা হয়। কারণ কাঁচা আমে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে। এ ছাড়া এটি রক্তের লোহিত কণিকা তৈরিতে সাহায্য করে। কাঁচা আম যকৃৎ এবং এই সম্পর্কিত যেকোনো ধরনের অসুখ সারাতে সাহায্য করে। এক টুকরো কাঁচা আম চিবিয়ে খেলে তা খাবারে থাকা ক্ষতিকর জীবাণু ধ্বংস করতে সাহায্য করে। এটি ফ্যাট শোষণ করতেও কার্যকরী ভ‚মিকা রাখে। এক টুকরা কাঁচা আম চিবিয়ে খেলে খাওয়ার পর অবসন্ন ভাব দূর হয়। এটি শরীরের কার্যক্ষমতাও বাড়ায়। সূত্র : এনডিটিভি




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: