অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৩শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

সহায়ক সরকারের দাবি গ্রহণযোগ্য নয়: সংসদে প্রধানমন্ত্রী

Print

নিজস্ব প্রতিবেদক : বিএনপির সহায়ক সরকারের দাবি এবার সংসদে প্রত্যাখ্যান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ী সহায়ক সরকার বলে কোনো সরকার গঠন করার বিধান নেই। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বিএনপি কোনোদিনই গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতার পক্ষে ছিল না। তাই তারা অসাংবিধানিকভাবে সহায়ক সরকারের দাবি করে আসছে, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। বুধবার সংসদে সিরাজগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য তানভীর ইমামের এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, সহায়ক সরকারের দাবি অসাংবিধানিক। নির্বাচনকালীন সরকার কেমন হবে, তা ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন তার দায়িত্ব পালন করবে। এ সময় সরকারের পরিসর ছোট করা হবে। সরকার নির্বাচনকালীন শুধু রুটিন কার্যক্রম পরিচালনা করবে। কোনো নীতিগত সিদ্ধান্ত নেবে না। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, গত ১২ জানুয়ারি সরকারের চতুর্থ বর্ষপূর্তির দিন জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বলেছিলাম।
বাংলাদেশের সর্বোচ্চ আইন হচ্ছে সংবিধান। সংবিধান অনুযায়ী সহায়ক সরকার বলে কোনো সরকার গঠন করার বিধান নেই। বিএনপির প্রতিষ্ঠাকালীন ইতিহাস তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি জন্ম নিয়েছে মার্শাল ল জারি করে সংবিধান লংঘন করার মাধ্যমে অবৈধ পথে। তাই অবৈধ দাবি করাটা তাদের অভ্যাস। তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের আমলে ভোটারবিহীন গণভোট (হ্যাঁ/না) করেছিল বিএনপি। সামরিক বাহিনীকে কাজে লাগিয়ে কোনো নিয়মনীতি অনুসরণ না করে, তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েমকে সরিয়ে জিয়াউর রহমান নিজেকে রাষ্ট্রপতি ঘোষণা করেন এবং সরকার গঠন করেন। বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্টের রায়ে পরবর্তীতে তার এই কর্মকাÐ অবৈধ ঘোষিত হয়েছে।
তত্ত¡াবধায়ক সরকার গঠনের প্রেক্ষাপট বর্ণনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় এসে সরকার গঠন করার পর মাগুরা ও ঢাকার উপ-নির্বাচনে নজিরবিহীন কারচুপি করেছিল। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রæয়ারি ভোটারবিহীন নির্বাচন করে অবৈধ সরকার গঠন করে বিএনপি। গণ-আন্দোলনের মুখে দেড় মাসের মধ্যে তাদের পতন ঘটে। ওই সময়ে বিএনপি নির্বাচনি ব্যবস্থা ও গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতা পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছিল।
তিনি বলেন, ২০০৬ সালে বাংলাদেশের সংবিধানে তত্ত¡াবধায়ক সরকারের স্পষ্ট রূপরেখা থাকা সত্তে¡ও তাদের পছন্দসই ব্যক্তিকে তত্ত¡াবধায়ক সরকারের প্রধান করার চেষ্টা করে। নির্বাচনের নামে প্রহসন করার উদ্দেশ্য থাকায় দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়। একটি তত্ত¡াবধায়ক সরকার দুই বছর ক্ষমতায় থাকে। শেখ হাসিনা বলেন, ইতিহাস পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বিএনপি কোনোদিনই গণতান্ত্রিক ধারাবাহিকতার পক্ষে ছিল না। আর এজন্যই বর্তমানে তারা অসাংবিধানিকভাবে সহায়ক সরকারের দাবি করে আসছে। শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের সরকার গণতন্ত্রকে সবসময় সমুন্নত রাখবে। সেজন্য সংবিধান পরিপন্থী কোনো সরকার ব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করবো না।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.