অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৩রা জিলক্বদ, ১৪৪২ হিজরী

সিমোনের আর বাকি তিন

Print

স্পোর্টস ডেস্ক: তাকে হারানোর চিন্তা করেনি কেউÑ সিমোন বাইলসের শিরোপা জয় শেষে প্রতিপক্ষ জিমন্যাস্টরা বলেন এমন কথা। গতকাল মেয়েদের আর্টিস্টিক জিম্যানস্টিকসে অল-এরাউন্ড ইভেন্টের শিরোপা জেতেন যুক্তরাষ্ট্রের সিমোন বাইলস। এতে রৌপ্যপদক জেতেন স্বদেশি জিমন্যাস্ট আলেকজান্দ্রা রাইসম্যান। আর ব্রোঞ্জ পদক ওঠে রাশিয়ার আলিয়া মুস্তাফিনার গলায়। পরে রাইসম্যান বলেন, তাকে (বাইলস) হারানোর চিন্তা করেনি কেউ। যেমন উসাইন বোল্টের বিপক্ষে জয়ের চিন্তা থাকে না অনেকেরই। আমরা বোনের মতো। আমি তাকে আগেই বলেছি তুমি শিরোপা জিতবে, আমি রৌপ্যটা চাই। ৪ ফুট ৮ ইঞ্চির ছোট-খাটো গড়নের সিমোনকে নিয়ে এবার বড় স্বপ্ন মার্কিনদের। অলিম্পিকের এক আসরে পাঁচ স্বর্ণের নজির নেই কোনো জিমন্যাস্টের। রিও অলিম্পিকসে বার, ভল্ট, ব্যালেন্স বিম, ফ্লোরÑ একক জিমন্যাস্টিকসের সব ইভেন্টেই অংশ নিচ্ছেন ১৯ বছর বয়সী সিমোন বাইলস। রিওতে জিমন্যাস্টিকসের কঠিন ও দর্শকপ্রিয় অল-এরাউন্ড ইভেন্টের পৃথক চার ধরনের কসরতে সিমোন বাইলসের নৈপুণ্য ছিল দ্যুতিময়। ফ্লোরে সিমোন বাইলস স্কোর করেন ১৫.৯৩৩। অলিম্পিকের ফাইনাল রাউন্ডে এটি রেকর্ড। ভল্টে তার স্কোর ছিল সেরা ১৫.৮৬৬। ব্যালেন্স বিমে সেরা ১৫.৪৩৩। কেবল আন ইভেন বার রাউন্ডে মুস্তাফিনার পেছনে ১৪.৯৬৬ স্কোর করেন সিমোন বাইলস। তবে শেষ পর্যন্ত সিমোন স্বর্ণপদক জেতে স্বদেশি তারকা আলেকজান্দ্রা রাইসম্যানকে পরিষ্কার ২ পয়েন্টে পেছনে রেখে। জিমন্যাস্টিকসের কৃষ্ণকলি সিমোন বাইলসের আন্তর্জাতিক অভিষেক ২০১৩ সালে। ১৯ বছরের সিমোন বাইলসের ঝুলিতে রয়েছে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের ১০টি শিরোপা। রিওতে কুড়িয়েছেন দলগত ইভেন্টের শিরোপাও। আর সিমোনকে ব্যতিক্রমী এক প্রতিভা বলে মনে করেন জিমন্যাস্টিকসের বোদ্ধা-বিশ্লেষকরা। মার্কিন ক্রীড়া লেখক ডেভ লিজ বলেন, সাধারণত প্রতিটি জিমন্যাস্টের পছন্দের একটি ইভেন্ট থাকে যেখানে তাদের নৈপুণ্যটা থাকে দারুণ। কিন্তু সিমোন বাইলস এমন একজন জিমন্যাস্ট যে সব ইভেন্টেই অনন্য। অলিম্পিক জিমন্যাস্টিকসের মেয়েদের অল-এরাউন্ড ইভেন্টে এটি যুক্তরাষ্ট্রের টানা চতুর্থ শিরোপা। ২০০৪ অ্যাথেন্স অলিম্পিকসে কার্লি প্যাটারসন, ২০০৮ বেইজিং গেমসে নাসটিয়া লিউকিন ও ২০১২ লন্ডন আসরে শিরোপা কুড়ান গ্যাব্রিয়েল ডগলাস। নৈপুণ্যের মতো সিমোন বাইলসের চিন্তা ভাবনাটাও পরিষ্কার। অল-এরাউন্ড শিরোপা জয় শেষে বাইলস বলেন, আমার কাছে নির্ভার লাগছে। এমন অনুভ‚তি পাওয়ার আগে বোঝা যায় না। আমি পরবর্তী উসাইন বোল্ট বা মাইকেল ফেলপস নই। আমি প্রথম সিমোন বাইলস। আমি সেই সিমোন-ই আছি।




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: