অনলাইন নিউজপেপার সাইট ঢাকা, ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২রা জিলক্বদ, ১৪৪২ হিজরী

সিরিজে প্রতিদ্বন্দ্বিতা দেখছেন ইংল্যান্ড দল

Print

স্পোর্টস ডেস্ক: ইংল্যান্ড দল ঢাকায় এসেছে আরও দুই দিন আগে। তবে গতকালই তারা প্রথম মাঠে নামল। সর্বোচ্চ নিরাপত্তার আশ্বাসে বাংলাদেশ সফরে আসা ইংলিশদের অবশ্য কাল নিরুদ্বেগই মনে হয়েছে। বিসিবি একাডেমি মাঠে বিকেলের অনুশীলন শেষে ফ্লাডলাইটের আলোতেও নিজেদের খানিকটা ঝালিয়ে নিয়েছে তারা।
ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি) সবুজসংকেত দেওয়ার পরও একটা অনিশ্চয়তা অবশ্য ছিল—পুরো শক্তির দল নিয়ে বাংলাদেশ সফরে আসবে তো? সেই সংশয়ও কেটেছে। শক্তিশালী দলই পাঠিয়েছে ইসিবি। যদিও ইংল্যান্ড দলের নিয়মিত ওয়ানডে অধিনায়ক এউইন মরগান সফর থেকে সরে দাঁড়ানোয় দলের নেতৃত্বভার চেপেছে উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান জস বাটলারের কাঁধে। ঢাকায় এসে নিরাপত্তা নিয়ে সন্তুষ্ট ইংলিশ অধিনায়ক। ‘যখন উপমহাদেশে সফর করি, নিরাপত্তাকে প্রাধান্য দিই আমরা। এটাও ঠিক, এখানে আমাদের আতিথেয়তাও দেওয়া হয়েছে ভালোভাবেই। হ্যাঁ, অবশ্যই এখানে অনেক নিরাপত্তা আছে, যেটি আমাদের সফর নির্বিঘ্ন করতে ভীষণ জরুরি। সেই কারণেই আমরা এখানে। আজ (কাল) আমরা অনুশীলন শুরু করব, ক্রিকেট নিয়ে চিন্তাভাবনা শুরু করব। আশা করি, এটা খুবই প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ সিরিজ হবে’—কাল বিসিবির সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন বাটলার।

বাংলাদেশ সফর করা নিয়ে ইংলিশ ক্রিকেটারদের ওপরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ভার ছেড়ে দিয়েছিল ইসিবি।

দলের গুরুত্বপূর্ণ দুই খেলোয়াড় বাংলাদেশ সফরকে ‘না’ করে দিলেও বাটলারকে আসতে অনুপ্রাণিত করেছে ক্রিকেটের প্রতি এখানকার মানুষের ভালোবাসা, ‘যখন ইসিবি সিদ্ধান্ত নিয়েছে বুঝতে হবে সফরটা এগিয়ে যাবে। তবে খেলোয়াড়দের নিরাপত্তা তাদের কাছে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। নিরাপত্তা-সংক্রান্ত এমন কোনো বিষয় নেই যেটি বোর্ড খুঁটিয়ে দেখেনি। আপনি যখন এই সংবাদ সম্মেলনকক্ষটা এমন পরিপূর্ণ দেখবেন বুঝতে হবে ক্রিকেটকে এঁরা কতটা ভালোবাসেন। নিরাপত্তা কোনো বিষয় হোক, আমরা কখনো তা চাইনি। আমরা এখানে খেলতে এসেছি, বাংলাদেশ ও ইংল্যান্ডের জন্য এটা দারুণ এক বিষয়।’

দুর্দান্ত ফর্মে থাকা জো রুটকে ওয়ানডে থেকে দেওয়া হয়েছে বিশ্রাম। আর হেলস নিজ থেকেই ‘না’ করে দিয়েছেন। দলের দুই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাটসম্যান না থাকলেও ইংল্যান্ড দলে এসেছে নতুন তিন মুখ। ওপেনার বেন ডাকেট এই বছর ঘরোয়া ক্রিকেটে বইয়ে দিয়েছেন রানের বন্যা। উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান স্যাম বিলিংস আছেন নিজেকে মেলে ধরার অপেক্ষায়। তরুণ এই খেলোয়াড়দের নিয়ে বেশ আশাবাদী বাটলার, ‘সর্বশেষ ১৮ মাসে হেলস ও রুট অসাধারণ খেলেছে। তারা না এলেও অন্যদের জন্য দারুণ সুযোগ তৈরি হয়েছে। কিছু অসাধারণ প্রতিভাবান তরুণ আছে স্কোয়াডে। দলে স্বাস্থ্যকর এক প্রতিযোগিতা চলছে। বেন ডাকেট অভিষেকের অপেক্ষায়। সে ইংল্যান্ড লায়নের হয়ে দুর্দান্ত এক বছর কাটিয়েছে। বিলিংসের মতো খেলোয়াড় আছে, যে দীর্ঘ সময় ইংল্যান্ড দলে খেলতে পারে।’

চ্যালেঞ্জ আছে বাটলারের সামনেও। এই সিরিজে অধিনায়কের গুরুদায়িত্ব সামলাতে হবে তাঁকে। চ্যালেঞ্জটা অবশ্য নিচ্ছেন ইংলিশ অধিনায়ক, ‘এটা রোমাঞ্চকর এক চ্যালেঞ্জ, যেটির জন্য আমি তাকিয়ে ছিলাম। ১৮ মাসের বেশি সময় ধরে আমি সহ-অধিনায়ক হিসেবে দলে খেলছি। এইউনের (মরগান) সঙ্গে আমার দারুণ সম্পর্ক। আমার ধারণা, আমাদের দুজনের ক্রিকেটীয় দৃষ্টিভঙ্গি এক। আপনি যত অভিজ্ঞ হবেন, আপনার দায়িত্ববোধও তত বাড়বে। ইংল্যান্ডের অধিনায়ক হওয়াটা বিরাট সম্মানের। এটা যতটা সম্ভব উপভোগ করার চেষ্টা করব।’

ইংল্যান্ড সিরিজ নিয়ে একে একে কেটে গেছে সব অনিশ্চয়তা। নিরাপত্তা নিয়ে সব ভাবনা পাশে সরিয়ে ধীরে ধীরে সবার মনোযোগ ফিরছে মাঠে। আগামীকাল ফতুল্লায় বিসিবি একাদশের সঙ্গে এক দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ, ৭ অক্টোবর প্রথম ওয়ানডে দিয়ে থেকে শুরু হয়ে যাবে ব্যাট-বলের রোমাঞ্চকর লড়াই। নিরাপত্তা-সংক্রান্ত আলোচনা তখন ধীরে ধীরে হয়ে পড়বে অপ্রাসঙ্গিক!

দৈনিকচিত্র.কম/এম




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Time limit is exhausted. Please reload CAPTCHA.

%d bloggers like this: